Opu Hasnat

আজ ১৪ জুলাই রবিবার ২০২৪,

সৈয়দপুরে আলু ৬০ কাঁচা মরিচ ২৫০ টাকা কেজি নীলফামারী

সৈয়দপুরে আলু ৬০ কাঁচা মরিচ ২৫০ টাকা কেজি

এক সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে আলু ও কাঁচা মরিচের। বাজারে প্রতিকেজি দেশি পাটনি আলু বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়, কার্ডিনাল আলু বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায়। কাঁচা মরিচের দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা কেজিতে। সোমবার (১ জুলাই) সকালে নীলফামারীর সৈয়দপুরের পাইকারি ও খুচরা বাজার ঘুরে এই তথ্য মিলেছে।

বাজার করতে আসা শহরের সাহেবপাড়ার রেল কর্মচারী আবু হোসেন বলেন, সামান্য বেতনে দেশের বৃহত্তম রেলওয়ে কারখানায় শ্রমিক পদে চাকরি করি। বর্তমানে যে হারে বাজার বাড়ছে তাতে আমাদের মতো সাধারণ মানুষের বাঁচার কোনো পথ নেই। কয়েকদিন আগে আলু ৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে আর কাঁচা মরিচও ছিলো সাধ্যের মধ্যে। টিপটপ বৃষ্টির কারণে এসবের দাম বেড়েছে।

সবজি বিক্রেতা হানিফ উদ্দিন বলেন বৃষ্টির কারণে কাঁচা মরিচের ক্ষেত মরে যাচ্ছে। ফলে বাজারে সরবরাহ কম। তাই বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। তিনি বলেন, বাজারের বেশিরভাগ কাঁচা মরিচের চাহিদা পূরণ করছে নীলফামারীর ডোমারের মরিচ। সেখান থেকে মরিচ এনে বিক্রি করছেন পাইকাররা। নীলফামারীর ডোমার ও পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে মরিচচাষিরা তাঁদের ক্ষেতের মরিচ নিয়ে আসেন এই হাটে। স্থানীয় মরিচ ব্যবসায়ীরা এই হাটে মরিচ কিনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নিয়ে বিক্রি করেন। এই কেনাবেচার সঙ্গে যুক্ত আছেন তিন শতাধিক শ্রমিক ও ফড়িয়া।

সৈয়দপুরে কোল্ড স্টোরেজ রয়েছে ইসমাঈল বীজ হিমাগার, সাজেদা কোল্ড স্টোরেজ ও নর্দান কোল্ড স্টোরেজ রয়েছে। এসব কোল্ড স্টোরেজ থেকে আলু বের করে স্টোরেজে মজুদকারীর কাছ থেকে পাইকাররা কিনছেন ৪৫ থেকে ৪৭ টাকা কেজিতে কিনছেন। সেই আলু বাজারে এসে ৫০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতে লাভবান হচ্ছেন মধ্যস্বত্বভোগীরা।

সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুরে অবস্থিত ইসমাঈল বীজ হিমাগারের আলু বের করতে আসা আমিনুর রহমান জানান, বাড়ির আবাদি জমির ৭০ বস্তা (প্রতিবস্তা ৬০ কেজি) আলু সংরক্ষণ করেছি। টাকার প্রয়োজনে ১০ বস্তা আলু বের করে পাইকারের কাছে বিক্রি করেছি ৪৫ টাকা কেজি দরে।

তিনি বলেন, হামরা বেঁচলে দাম নাই, কিনতে গেলে দাম চায় বেশি।