Opu Hasnat

আজ ২২ মে বুধবার ২০২৪,

মোরেলগঞ্জে ৩৫ টি মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষার ফল চরম বিপর্যয়! বাগেরহাট

মোরেলগঞ্জে ৩৫ টি মাদ্রাসার দাখিল পরীক্ষার ফল চরম বিপর্যয়!

সারাদেশের মত বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে ২০২৪ সালের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। মোরেলগঞ্জে এবার মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের ফলাফল হতাশাজনক, তবে অভিভাবকরা বলছেন ভিন্নকথা তারা বলছেন  বিগত কয়েক  বছরের মধ্যে এবারই সঠিক মেধার যাচাই হয়েছে । ৬২ টি মাদ্রসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে  জিপিএ -৫ পেয়েছে মাত্র ৭ জন।

অভিভাবকদের অভিযোগ , শিক্ষকদের উদাসীনতা, মাদ্রাসায় সঠিকভাবে পাঠদান না করা এবং নিয়মিত প্রতিস্টানে না এসে শিক্ষা অফিসের দরজায় গিয়ে নিয়োগবানিজ্য সহ নানাবিধ তদবিরে নিয়োজিত থাকার কারনে আজ মাদ্রসা শিক্ষা ব্যবস্থার আজ এই বিপর্যয়।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস থেকে প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, ২০২৪ সালের এসএসসি পরীক্ষায় মাদ্রসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মোরেলগঞ্জ থেকে অংশগ্রহণ করে ৬২ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৭৩৫ জন দাখিল শিক্ষার্থী। যার মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছেন ৮৫১ জন, অকৃতকার্য হয়েছে ৮৫৪ জন। উপজেলায় গড় পাশের হার ৫১ শতাংশ। এর মধ্যে জিপিএ - ৫ পেয়েছে মাত্র ৭ জন।

৬২ টি মাদ্রসায় মধ্যে  ৩৫ টি মাদ্রসায় চরম ফলাফল বিপর্যয় ঘটেছে। ফলাফল হতাশাজনক এবং বিপর্যয়গ্রস্থ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে  এ জি মকবুল হোসেন দাখিল মাদ্রসার ৩৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ফেল করেছে ১৫ জন, পুটিখালি ইসলামিয়া আলিম মাদ্রসায় ২৮ জন পরীক্ষার্থীর ১৫ জন ফেল করেছে, সোনাখালি আজিজিয়া আলিম মাদ্রসায় ৩৮ জনের মধ্যে ২৪ জন  ফেল, এ বি গজালিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ২৮ জনের মধ্যে ১৪ জন ফেল, হামসাপুর দৌলদিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ৫৭ জনের ফেল করেছে ২০ জন, পোলেরহাট আজাহারিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ৪২ জনের মধ্যে ১৪ জন ফেল, কদম রসুলের পার দাখিল মাদ্রসায়  ২৪ জনের মধ্যে ১৪ জন ফেল, সেলিমগড় চিংড়িখালি ইসলামিয়া আলীম মাদ্রসায়২৭ জনের মধ্য ১৭ জন ফেল, এস চণ্ডিপুর দাখিল মাদ্রসায় ২৮ জনের মধ্যে ১৭ জন ফেল, নেহালপুর কুয়ারদা দাখিল মাদ্রসায় ২৫ জনের মধ্যে ১৯ জন ফেল, শ্রেনীখালি ইসাহাক আলী দাখিল মাদ্রসায় ২৬ জনের ২০ জন ফেল, চরহোগলাবুনিয়া আজিজিয়া মাদ্রাসায় ২২ জনের ১৩ জন ফেল, ফুলহাতা ফজলুল করিম দাখিল মাদ্রসায় ২৮  জনের ২৩ ফেল, ছাপরাখালি গাজীরগাট দাখিল মাদ্রাসায় ২০ জনের ১৪ জন ফেল, পঞ্চগ্রাম সম্মিলিত ইউসুফিয়া দাখিল মাদ্রাসা ৩৯ জনের ২৭ জন ফেল, তালিমুনেচ্ছা দাখিল মাদ্রসায় ১৯ জনের মধ্যে ১৮ জন ফেল, সোমাদ্দারখালি ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রসায় ৩১ জনের ১৭ জন ফেল, গুলশাখালি ফাজিল মাদ্রাসায় ৩০ জনের ১৮ জন ফেল, গুলজিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রসায় ২৬ জনের ২১ জন ফেল, এনায়েতিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ১০ জনের মধ্যে ৭ জন, হামিজিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ৩২ জনের ১৫ জন, হাজী ইব্রাহিম স্মৃতি দাখিল মাদ্রসায় ২০ জনের মধ্যে ১১ জন ফেল, বি এস এস দাখিল মাদ্রসায় ২৭ জনের মধ্যে ১৮ জন ফেল, বি এস ওহেজিয়া দাখিল মাদ্রসায় ২১ জনের মধ্যে ১৬ জন ফেল, সুতালরি সফিজ উদ্দিন দাখিল মাদ্রসায় ১০ জনের ৮ জন ফেল, সন্যাসী বরিশাল লতিফিলা দাখিল মাদ্রসায় ৩৮ জনের ২৩ জন ফেল, নিশানবাড়িয়া দাখিল মাদ্রাসায় ৩০ জনের ২৮ জন, কাঠালতলা গিয়াসিয়া দাখিল মাদ্রসায় ১৬ জনের ১০ জন, দারুন কোরআন ফজলুল করিম দাখিল মাদ্রাসায় ৫০ জনের ২৮ জন ফেল, দক্ষিন সুতালড়ি মমিম উদ্দিন দাখিল মাদ্রসায় ২৮ জনের ৯ জন ফেল, মানিকমিয়া  দাখিল মাদ্রসায় ১৯ জনের মধ্যে ৯ জন, আবু হুরাইরা দাখিল মাদ্রসায় ৩৬ জনের মধ্যে ২২ জন ফেল, ঘষিয়াখালি ইসালামিয়া দাখিল মাদ্রসায় ৩০ জনের মধ্যে ১৮ জন ফেল করেছে।

ফলাফলের চরম বিপর্যয়গ্রস্থ মাদ্রসা তলিমুনেচ্ছা দাখিল মাদ্রসার সুপার হাসিনা বেগম জানান, বিবাহিত নারীদের ডেকে এনে ফরম ফিলাম করিয়েছি, বিয়ের পরে পড়াশোনা করতে চায় না তাই এমন ফলাফল। 

ফলাফল বিপর্যয়ের কারন জানতে চাইলে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা এবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সহযোগীতায়, সচ্ছতার সাথে পরীক্ষা উঠাতে পেরেছি যার ফলে মেধা তালিকায় সঠিক রেজাল্ট বের হয়ে আসছে, তবে মাদ্রসা শিক্ষা ব্যবস্থায় শিক্ষার মানোন্নয়ন করার জন্য  আমরা কাজ করছি।

এ ব্যাপারে বাগেরহাট জেলার  অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) সাদিয়া ইসলাম বলেন, মোরেলগঞ্জে এমপিওভুক্ত যে সকল প্রতিষ্ঠানে ফলাফল খারাপ হয়েছে সেসব প্রতিষ্ঠান আমরা  পর্যবেক্ষণে রাখার পাশাপাশি ফলাফল কেন এতো খারাপ হলো তা যাচাই-বাছাই করব, উর্ধতন কতৃপক্ষকে অবহিত করবো।