Opu Hasnat

আজ ১৪ জুলাই রবিবার ২০২৪,

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী রনজিৎ চৌধুরীর উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া সুনামগঞ্জ

বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী রনজিৎ চৌধুরীর উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া

একমাস সিয়াম সাধনা ও আত্মশুদ্ধির মাসে সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য এবং ফতেপুর ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান রনজিৎ চৌধুরী রাজনের নিজ উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রনজিৎ চৌধুরী রাজনের ফতেপুর নিজ গ্রামের বাড়ির সামনে এই ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। 

ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফারুক আহমদের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সাবেক ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য রনজিৎ চৌধুরী রাজন, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা শাখা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোঃ ফজলুল হক, সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শেখ আব্দুস সামাদ, ফতেপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ জয়নাল আবেদীন, সাবেক ৮নং ইউপি সদস্য মনসুর নুর চৌধুরী, আব্দুল ওয়াহাব, ফিরোজ আলী, আব্দুল হান্নান, মোঃ মানিক মিয়া, পিয়ারা বেগম, শিক্ষক কেবল মাষ্ঠার, নিরঞ্জন বিশ্বাস, রতিলাল বিশ্বাস ও আব্দুল আউয়াল প্রমুখ।

বিশ্বম্ভরপুর  উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী রনজিৎ চৌধুরী রাজন বলেন, বাংলাদেশ একটি সম্প্রীতির দেশ। এই দেশটি ১৯৭১ সালে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে তৎকালীন সাড়ে সাতকোটি হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ও বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠির মানুষজন জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করার জন্য মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহন করেছিলেন। ঐ সময় ত্রিশলাখ শহীদ ও দু'লাখ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছিল আজকের এই স্বাধীন বাংলাদেশটি। স্বাধীনতার সাড়ে তিনবছরের মাথায় কিছু বিপদগামি সেনা অফিসার ও পরাজিত শত্রু পাকিস্থানীদের দোসরা মিলে জাতির পিতাকে স্বপরিবারে হত্যার মধ্যে দিয়ে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রাকে বাঁধাগ্রস্থ করেছিল। কিন্তু স্বাধীনতার ২১ বছর পরে জাতির পিতার সুযোগ্য উত্তরসূরী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে দেশ আজ বিশ্বে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হয়েছে। তিনি আরো বলেন হাওরের জেলা সুনামগেঞ্জর বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা একটি সম্ভাবনাময় উপজেলা। কিন্তু স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে নানান প্রতিকূলতার কারণে যোগ্য নেতৃত্ব থাকলেও উপজেলার বিশাল জনগোষ্ঠির ভাগ্যের আজও তেমন একটা পরিবর্তন হয়নি। তাই এই উপজেলার সার্বিক উন্নয়নের কথা মাথায় রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কর্মী হিসেবে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছি। যদি এই উপজেলার মানুষ আমাকে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত করেন তাহলে উপজেলাবাসীর মতামত নিয়ে এই উপজেলাকে একটি মডেল উপজেলা গড়ে তোলার দৃঢ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পরে ইফতার পূর্ব দেশ ও জাতির মঙ্গল ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দেশের আপামোর জনসাধারনের সুস্বাস্থ্য ও র্দীঘায়ূ কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজত করা হয়।