Opu Hasnat

আজ ১৪ জুলাই রবিবার ২০২৪,

পানছড়িতে ৪ হত্যাকান্ড ও ৩ ইউপিডিএফ’র অপহরণের প্রতিবাদে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ খাগড়াছড়ি

পানছড়িতে ৪ হত্যাকান্ড ও ৩ ইউপিডিএফ’র অপহরণের প্রতিবাদে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার পানছড়ি উপজেলাতে গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিপুল চাকমা ও খাগড়াছড়ি জেলা সহ-সভাপতি লিটন চাকমা, পিসিপির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি সুনীল ত্রিপুরা ও ইউপিডিএফ সংগঠক রুহিন ত্রিপুরাকে নৃশংসভাবে হত্যা এবং ইউপিডিএফ-এর সংগঠক হরি কমল ত্রিপুরা, নীতি দত্ত চাকমা, মিলন চাকমাকে অপহরণের প্রতিবাদে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ মিছিল করেছে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, হিল উইমেন্স ফেডারেশন ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম।

মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর ২০২৩) বিকেল সাড়ে ৩টায় ডিসি হিল থেকে একটি মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি প্রেসক্লাব এলাকা ঘুরে এসে চেরাগী পাহাড় মোড়ে এসে সমাবেশে মিলিত হয়।

সমাবেশে গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের চট্টগ্রাম নগর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শুভ চাক’র সভাপতত্বে ও পিসিপি’র চবি শাখার সাধারণ সম্পাদক রোনাল চাকমার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় সভাপতি অঙ্কন চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভানেত্রী নীতি চাকমা এবং সমাবেশে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সভাপতি এডভোকেট ভূলন ভৌমিক, সাম্যবাদী আন্দোলন চট্টগ্রাম নগরের নেতা অপু দাশ গুপ্ত, গনতান্ত্রিক ছাত্র জোট চট্টগ্রাম অঞ্চলের সমন্বয়ক ও বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী নগর আহ্বায়ক আবিদ ইসলাম প্রমুখ।

সমাবেশে পিসিপি সভাপতি অঙ্কন চাকমা বলেন, পানছড়িতে পরিকল্পিত হত্যাকান্ড সংঘটিত করে সরকার যে রক্ত রক্ত খেলায় মেতে উঠেছে সেটা হাসিনা সরকারের ফ্যাসিস্ট রূপ। এই খুন-রক্ত আপনার গায়ে এসেও লাগবে।

বিপুল চাকমার স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, বিপুল চাকমা খাগড়াছড়িতে ইতি চাকমাকে হত্যা, কুমিল্লার ক্যান্টনমেন্টে তনু হত্যা, আলুটিলা ভূমি রক্ষার আন্দোলন এবং বিলাইছড়িতে সেনা সদস্য কতৃক ২ সহোদরা মারমা কিশেরীকে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনসহ সারা দেশে নিপীড়িত-নির্যাতিত-মেহনতি মানুষের অধিকারের লড়াইয়ে ছাত্র সমাজকে সংগঠিত করেছেন। পার্বত্য চট্টগ্রামের নিপীড়িত জনগনের মুক্তির আকাঙ্খায় ছাত্র-যুব সমাজকে সংগঠিত ও সচেতন করতে পুরো পার্বত্য চট্টগ্রাম চষে বেড়িয়েছেন। বিপুল চাকমার বহু সহযোদ্ধা, শুভাকাঙ্ক্ষী ও অনুসারী রয়েছে। তাঁরাও আগামী দিনের বিপুল হতে প্রস্তুুত রয়েছেন, প্রস্তুুতি নিচ্ছেন এবং লড়াই সংগ্রামের শেষ ফলাফল তাঁরা দেখতে প্রস্তুুত রয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, ২০১৮সালে খাগড়াছড়ির স্বনির্ভরে দিন-দুপুরে ৭ খুনের ঘটনার কোন বিচার না হওয়া এবং অপরাধীদের সেনাদের আশ্রয় প্রশ্রয় প্রদান ও ব্যবহার গতকালকের ঘটনা তৈরি করেছে।

হিল উইমেন্স ফেডাারেশনে সভাপতি নীতি চাকমা বলেন,“পার্বত্য চট্টগ্রামে যে হত্যাকান্ডগুলো চালানো হচ্ছে এগুলো পার্বত্য চট্টগ্রামের মুক্তিকামী জনগণের আন্দোলনকে দমন করারা জন্য। শাসকগোষ্ঠীর অঙ্গুলি হেলনে এ ধরনের হত্যাকান্ড চালিয়ে আন্দোলনের নেতৃত্ব ধ্বংস ও জনগণের মনে ভয় ধরানোর জন্য শাসকরা এ হত্যাকান্ড চালিয়েছে।

এ্যাডভোকেট ভুলন লাল ভৌমিক বলেন, পাক হানাদার বাহিনীর মত বর্তমান সরকার পাহাড়ে ঠ্যাঙ্গারে বাহিনী তৈরি করে পাহাড়ের জনমানুষের উপর গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে জনগণকে নিজেদের অধিকারের জন্য নিজেদেরকে শহীদের চেতনায় উজ্জীবিত হতে হবে”।

সংহতি জানিয়ে সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট নগর সভাপতি দীপা মজুমদার, গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিলের চট্টগ্রাম নগর আহবায়ক অ্যানি চৌধুরী, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন চট্টগ্রাম নগর সম্পাদক এসএম মেহেদী হাসান, বিপ্লবী ছাত্র যুব আন্দোলনের নেতা তিতাস চাকমা, গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল চবি শাখার সংগঠক ধ্রুব বড়ুয়া, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী চবি শাখার সংগঠক রেদোয়ান ইসলাম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, পানছড়ি উপজেলায় ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের ৪ নেতাকর্মীকে হত্যার ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। আতঙ্কে রয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা। সোমবার (১১ ডিসেম্বর) আনুমানিক রাত দশটার দিকে উপজেলার ১নম্বর লোগাং ইউপির ৬নম্বর ওয়ার্ডের অনিল পাড়ার অতুল চাকমার বাড়িতে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। বাড়িতে ঢুকে সরাসরি এই হত্যকান্ড ঘটানো হয়। এসময় দুর্বৃত্তরা আরো ৩ জনকে ধরে নিয়ে যায়।