Opu Hasnat

আজ ২০ জুলাই শনিবার ২০২৪,

প্রতিমা বির্সজনের মধ্যে দিয়ে শারদীয় দূর্গোৎসবের সমাপ্তি সুনামগঞ্জ

প্রতিমা বির্সজনের মধ্যে দিয়ে শারদীয় দূর্গোৎসবের সমাপ্তি

বিজয়া দশমীর দিনে প্রতিমা বির্সজনের মধ্যে দিয়ে সারাদেশের ন্যায় সুনামগঞ্জেও হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজার সমাপ্তি হলো। মঙ্গলবার বিকেলে সুনামগঞ্জ পৌর শহরের ২৫টি মন্ডপে অনুষ্ঠিত দূর্গার প্রতিমা নিয়ে একে একে শহরের সরকারী জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় (বালুর) মাঠে জড়ো হয় এবং সুরমা নদীতে প্রতিমা বির্সজনের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মোঃ এহসান শাহ ও পৌর মেয়র নাদের বখত ।  

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আবু সাঈদ, মোঃ জাকির হোসেন, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নোমান বখত পলিন, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এড. বিমান কান্তি রায়, সাধারন সম্পাদক বিমল বণিক, পৌর কাউন্সিলর চঞ্চল কুমার লৌহ, কাউন্সিলর এহসান জামিল আনাছ প্রমুখ।

হিন্দু শাস্ত্র মতে দূর্গাদেবী গজে পৃথিবীতে এসেছিলেন সকর প্রাণীর মঙ্গল কামনায় তিনি গত তিনদিন যাবত মানবজাতির জন্য ঘোড়ায় চড়ে গজে আসেন এবং গজে চড়ে তিনি কৈলাসে তার স্বামীর গৃহে ফিরে যান। আবারো ৩৬৫দিন পর এই সময়টাতে দূর্গাদেবী মানবজাতির মঙ্গল কামনায় ধারদামে আসবেন বলে সনাতন ধর্মের অনুসারীরা বিশ্বাস করেন।

জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী ও পুলিশ সুপার মোঃ এহসান শাহ বলেছেন, ধর্ম যার যার উৎসব সবার এটা আবারো প্রমান করলো হাওরের জেলা সুনামগঞ্জের মানুষ। সম্প্রীতির বাংলাদেশে এই সুনামগঞ্জ জেলা একটি অন্যান্য উদাহরণ। এখানে হিন্দু,মুসলিম,বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের মানুষ যখন যে ধর্মের মানুষের কোন ধর্মীয় উৎসক হয় সেখানে সকর ধর্মের মানুষ অংশগ্রহন করে অনুষ্ঠানটিকে উৎসবমুখর করে তুলেন। তারা আরো বলেন, এই জেলায় শারদীয় দূর্গাপূজাটি নিরাপদে এবং উৎসবমুখর পরিবেশে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই নিরাপদে নারীপূরুষ মিলে একাকার হয়ে গত ৪ দিনব্যাপী পূজামন্ডপ পরিদর্শন ও অঞ্জলী প্রদান করতে পেরেছেন।  উল্লেখ্য, এবার সুনামগঞ্জ জেলা শহরসহ ১২টি উপজেলায় মোট ৪২৬টি পূজামন্ডপে শারদীয় দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়।