Opu Hasnat

আজ ২০ অক্টোবর বুধবার ২০২১,

মোরেলগঞ্জে এবার ৭২টি মন্ডপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে দুর্গাপূজা বাগেরহাট

মোরেলগঞ্জে এবার ৭২টি মন্ডপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে দুর্গাপূজা

সনাতন ধর্মাবলম্বীর সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার বাকী মাত্র ৩/৪ দিন। শেষ মূহুর্তে রং তুলি দিয়ে বাড়তি সৌন্দর্য বাড়াতে নানা রঙ্গে প্রতিমা সাজাতে ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পীরা।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ জানিয়েছেন, বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নে ৭২টি পূজামন্ডপে শারদীয় দুর্গা উৎসব অনুষ্ঠিত হবে।

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় জাকজমকপূর্ণ ভাবে শারদীয় দুর্গাপূজার আয়োজন চলছে। এখন শারদীয় দুর্গোৎসবে মেতে ওঠার অপেক্ষায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। এ উৎসবকে ঘিরে উপজেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের মাঝে দেখা দিয়েছে পূজার আমেজ। নতুন পোশাক কেনা-কাটা করছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। বিভিন্ন হাট-বাজার ও মার্কেটে বেড়েছে ভিড়। মন্দিরের সাজ-সজ্জ্বা শুরু হয়েছে। পূজা সুষ্ঠু, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে পালনের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রস্তুতিমূলক সভা।

বিভিন্ন পূজামন্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, দিন রাত কাজ করে প্রতিমা শিল্পীদের হাতের নিপুণ ছোঁয়ায় তৈরি হচ্ছে দুর্গা সহ বিভিন্ন প্রতিমা। যেন দম ফেলার সময় নেই কারিগরদের। তবে এবার রং, তুলির ও সাজসজ্জার দাম বেশি বলে জানিয়েছেন কারিগরেরা। প্রতিমা শিল্পী শুশীল পাল (৬০) কাজ করছেন মোরেলগঞ্জ কেন্দ্রীয় হরিসভা মন্দিরে। তিনি প্রায় ৩০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরি করছেন। তার বাবা-দাদাও প্রতিমা তৈরি করতেন।

সারা বছরই প্রতিমা তৈরি করে জীবিকা চালান বলে জানিয়ে শুশীল পাল বলেন, “দুর্গাপূজা এলে আমাদের কাজ বেড়ে যায়। এ সময় কর্মচারীদের বেতন দিয়েও আমাদের লাখ খানেক টাকা আয় হয়ে থাকে।”এ পেশায় এই একটি মৌসুম ছাড়া সারা বছর কোনো কাজ থাকে না। তখন কি করে দিন চলবে? সেই অনিশ্চয়তার কারণেই লোক কমে যাচ্ছে এ পেশায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দুর্গাউৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা আগামী ১১ অক্টোবর ষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুর“ হবে।  ১২ অক্টোবর দেবীর সপ্তমী, ১৩ অক্টোবর দেবীর মহাঅষ্টমী (কুমারী পূজা, সন্ধি পূজা), ১৪ অক্টোবর দেবীর নবমী এবং ১৫ অক্টোবর দশমী পূজা (সমাপন ও দর্পন বিসর্জন) এবং সন্ধ্যায় আরত্রিকের পর প্রতিমা বির্সজনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ব বৃহত্তম ধর্মীয় এ উৎসব।

একটি প্রতিমা তৈরি করতে শিল্পীদের সর্বনিন্ম ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ হয়।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর