Opu Hasnat

আজ ১৮ সেপ্টেম্বর শনিবার ২০২১,

ব্রেকিং নিউজ

করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারে এগিয়ে আসলো ফরিদপুর পুলিশ ফরিদপুর

করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারে এগিয়ে আসলো ফরিদপুর পুলিশ

করোনার শুরু থেকে ফরিদপুর জেলা পুলিশ করোনায় মৃত ব্যক্তির দাফন, সৎকার, ফ্রি অক্সিজেন সেবা, অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী প্রদান, লকডাউন নিশ্চিত সহ নানা কাজে ফরিদপুর জেলা পুলিশ এখন একটি উদাহরন সারা দেশে।

ফরিদপুরে গত এক মাস যাবত করোনা অবস্থা ভয়াবহ রুপ ধারন করেছে। প্রতিদিন এখানে করোনা ও উপসর্গে মৃত হচ্ছে দশ জনের উপরে। আর এই সময়ে প্রতিনিয়ত ছুটছে করোনা রোগির সেবা সহ নানা কাজে ফরিদপুর পুলিশের সদস্যরা। এমন একটি উদাহরন আবার দেখলো ফরিদপুর। আজ শনিবার বিকেলে যখন করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারে পরিবার সহ কেও এগিয়ে আসলো না তখন জেলা পুলিশের সদস্যরা মৃত সেই ব্যক্তির সৎকার করে  দিলো।

জানাযায়, ফরিদপুর সদর উপজেলার ৬নং মাচ্চর ইউনিয়নের এর কৌরপুর গ্রামের বাসিন্দা বিপ্লব কুমার সাহা (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতুবরণ করেন গত রাতে। তার দুই মেয়ে ও স্ত্রী ছাড়া আর কেই নেই। তার নিজের কোন ছেলে সন্তান না থাকায় তার সৎকারের জন্য গ্রামের মানুষ সহায়তা করতে এগিয়ে আসেনি। আর এই সময় মৃতের সৎকারে জটিলতা হওয়ায় সমস্যার সৃষ্টি হয়। এই বিষয়টি ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মোঃ আলিমুজ্জামান জানতে পেরে নির্দেশ প্রদান করেন সৎকারের ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য। তার নির্দেশ পেয়ে এগিয়ে যায় ফরিদপুর পুলিশের সদস্যরা।  

এ সময় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে এসআই (নিঃ) মোঃ আনোয়ার হোসেন নেতৃত্বে ফরিদপুর জেলা পুলিশের একটি দল মৃতের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে তার মৃতদেহের সকল কার্য্য সম্পাদন করে। এরপর তাকে লাশবাহী গাড়ীতে করে নিয়ে গিয়ে লক্ষীদাসের হাট শশ্মানে সৎকার করেন।

শশ্মানে সৎকার উপস্থিত রনি তরফদার বলেন, এমন একটি ভালো কাজ পুলিশের সদস্যরা করলো আমি অভিভূত। তিনি বলেন তাদের পরিবারে ছেলে সন্তান না থাকায় সমস্যা সৃষ্টি হয়। এরপর জেলা পুলিশের সদস্যরা এসে সৎকারের সকল ব্যবস্থা করে দিলো। তাদের কাছে আমরা চির কৃতজ্ঞ।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) এর মোঃ তরিকুল ইসলাম বলেন, আমরা খবর পায় সদর উপজেলার ৬নং মাচ্চর ইউনিয়নের এর কৌরপুর গ্রামের বাসিন্দা বিপ্লব কুমার সাহা (৫৫) করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতুবরণ করেছেন। তার নিজের কোন ছেলে সন্তান নেই। সন্তান না থাকায় তার সৎকারের জন্য গ্রামের মানুষ সহায়তা করছে না। বিষয়টি জানার সাথে সাথে ফরিদপুর পুলিশ সুপার মোঃ আলিমুজ্জামানের নির্দেশ প্রদান করেন দ্রুত তার সৎকারের ব্যবস্থা করার জন্য। এরপর এসআই (নিঃ) মোঃ আনোয়ার হোসেন নেতৃত্বে একটি দল সেখানে গিয়ে সকল ব্যবস্থা সম্পন্ন করেন। তিনি বলেন এর আগেও জেলার যেখানেই করোনা রোগির সৎকার বা দাফনে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে সেখানেই জেলা পুলিশের টিম দাফন ও সৎকারে ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। ফরিদপুর জেলা পুলিশ সব সময় জনগনের পাশে আছে এবং থাকবে।