Opu Hasnat

আজ ১৫ মে শনিবার ২০২১,

ব্রেকিং নিউজ

প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সারা দিয়ে কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা কৃষি সংবাদমাগুরা

প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সারা দিয়ে কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা

প্রধান মন্ত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা অসহায় কৃষকদের জমির পাকাধান কেটে ঘরে তুলে দেয়া শুরু করেছে। শ্রমিক সংকট ও চড়া মজুরির কারণে জমির পাকা ধান কেটে ঘরে তুলতে পারছিলেন না এমন তিন দরিদ্র বর্গা চাষীর ধান কেটে ঘরে তুলে দিলেন মাগুরার জগদল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ রফিকুল ইসলাম।

ওই দরিদ্র তিন কৃষক হলেন মাগুরা সদর উপজেলার জগদল ইউনিয়নের খোর্দ্দছোনপুর গ্রামের মেহেদী শিকদার, গোলাম শিকদার ও ছত্তার মোল্ল্যা।

সোমবার  জগদল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে স্থানীয় ইউনিয়ন আ.লীগসহ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ ওই তিন কৃষকের জমিতে যান। সেখানে গিয়ে মেহেদী শিকদারের ৪৩ শতক, গোলাম শিকদারের ১১০ শতক ও ছত্তার মোল্ল্যার ৬০ শতক জমির পাকা ধান কেটে দেন। পরে ধানের আঁটি মাথায় করে বাড়িতে পৌঁছে দেন তারা। এদিকে অপ্রত্যাশিত ভাবে বিনা মজুরিতে জমির পাকা ধান কেটে ঘরে তুলতে পারায় আনন্দে আত্মহারা হয়ে যান দরিদ্র তিন কৃষক।

ধানকাটায় অংশ নেন কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, ইউনিয়ন আ.লীগের সহ-সভাপতি মান্নান শিকদার, ৭নং ওয়ার্ড আ.লীগ নেতা শাহাবুদ্দিন শিকদার, জেলা ছাত্রলীগ নেতা মফিজুর রহমান, মনিরুল ইসলাম, ইউনিয়ন কৃষকলীগ সভাপতি বাকিয়ার রহমান, জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহবায়ক দাউদ জোয়ার্দার।

জগদল গ্রামের উপকারভোগী কৃষক মেহেদী শিকদার বলেন, এবছর ধানের ফলন ভাল হলেও চড়া মজুরির কারণে জমির ধান কাটতে না পারায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। চড়ামূল্যে শ্রমিক দিয়ে ধান কাটলে আমার উৎপাদন খরচ উঠবেনা। এই অবস্থায় জমির ধান বৈরী আবহাওয়ায় নষ্ট হচ্ছিল। আমাদের চেয়ারম্যান রফিক ভাইয়ের উদ্যেগে আমার জমির ধান কাটা হয়েছে। খুব উপকার হয়েছে আমার।

জগদল ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ রফিকুল ইসলাম বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় অসহায় কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিতে পেরে নিজেদেরও ভালো লাগছে। ভবিষ্যতেও একইভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।