Opu Hasnat

আজ ৭ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার ২০২৩,

ব্রেকিং নিউজ

আফতাব উদ্দিনকে গ্রেফতারের দাবীতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা সুনামগঞ্জ

আফতাব উদ্দিনকে গ্রেফতারের দাবীতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

সুনামগঞ্জে তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের সোহালা গ্রামের আফতাব উদ্দিন ও তার সহযোগীদের গ্রেফতারের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করে সংবাদ সম্মেলন হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) দুপুরে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দৈনিক খবরপত্র প্রতিনিধি তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের পাটানপাড়া নিবাসী হোসাইন মাহমুদ শাহীন।

লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়, হোসাইন মাহমুদ শাহীনের উপর দুইবার হামলাকারী, তাদের জমি ও দোকানপাট দখলকারী এবং ভৈরবীবাজার ঘাটসহ হাটবাজারে চাঁদা আদায়কারী আফতাব উদ্দিন একজন আত্মস্বীকৃত চাঁদাবাজ সন্ত্রাসী। সে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসী বাংলা ভাইকেও ছাড়িয়ে গেছে। তার বিরুদ্ধে তাহিরপুর থানার নিয়মিত মামলা নং ৯ তাং ১৯/১০/২০২২ইং, সরকারী গাছ কেটে নেয়ার ঘটনায় ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আশীষ কুমার চক্রবর্তীর দায়েরকৃত মামলা নং জিআর ২০৯/১৮ (তাহিরপুর থানার মামলা নং ১৮) তাং ২৩/১১/২০১৮ইং, সাবেক মেম্বার মোঃ রেনু মিয়ার দায়েরকৃত জিআর ১৮৮/২০১৯ (তাহিরপুর থানার মামলা নং ১৫) তাং ২৪/৮/২০১৯ ইংসহ মোট ৪টি মামলা বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।  

এছাড়া ২২-০৪-২০২১ইং তারিখে মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের দায়েরকৃত অভিযোগ, সাবেক মেম্বার শামসুল হক শিকদারের দায়েরকৃত জিডি নং ৮৯৮ তাং ৩১/৩/২০২০ইং,গত ৪/৯/২০২২ইং তারিখে পাটানপাড়া নিবাসী হুমায়ূন কবীর সর্দার এর দায়েরকৃত অভিযোগ, গত ১৩ সেপ্টেম্বর আমলগ্রহনকারী জুডিসিয়েল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অবলা বিধবা ফেরদৌস বেগমের দায়েরকৃত অভিযোগ তাহিরপুর থানা পুলিশের কাছে তদন্তাধীন রয়েছে। তারপরও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছেনা। 

সাংবাদিক শাহীন বলেন, শারীরিক হামলার শিকার হওয়া ছাড়াও বর্তমানে আফতাব উদ্দিন ও তার বাহিনীর ভয়ে আমি ও আমার পরিবার ভিটেবাড়ী ছাড়া। বিজ্ঞ আদালতে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার না করলে প্রকাশ্য দিবালোকে আমি ও আমার ভাইদেরকে খুন করবে বলে সদম্ভে ঘোষণা দিয়ে বুক ফুলিয়ে বেড়াচ্ছে সন্ত্রাসী আফতাব উদ্দিন। তার অন্যায় অপতৎপরতার বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে সুনামগঞ্জের সাংবাদিক সমাজ শহরের ট্রাফিক পয়েন্টে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করেছেন। এরপরও পুলিশ প্রশাসনের কাছে আমি এখন পর্যন্ত কোন ন্যায়বিচার পাইনি। মামলা তদন্তের নামে পুলিশ প্রশাসন আসামীদের সাথে নিয়ে তদন্তের নামে চাঁদা উত্তোলনে তাদেরকে আরো উৎসাহ যুগিয়ে যাচ্ছে। ফলে আফতাব বাহিনীর চাঁদাবাজী ও সন্ত্রাস অব্যাহত রয়েছে।   

শাহীন জানান, ভৈরবীবাজার ঘাট হইতে তার বড় ভাই হুমায়ূন কবীর ও চাচাতো ভাই সোহানকে বিতাড়িত করে সপ্তাহের প্রতি রবিবার ও বৃহস্পতিবার ৮ হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করছে আফতাব বাহিনী। গত ২৪ জুলাই হতে ৬ অক্টোবর রবিবার পর্যন্ত ৩১টি হাটবাজারে ২ লাখ ৪৮ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে নিয়েছে তারা। চিহ্নিত উক্ত চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে শাহীন বাদী হয়ে সর্বশেষ গত ৩ নভেম্বর তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবরে এবং এর আগে একাধিকবার লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তারপরও কোন চাঁদাবাজদেরকেই গ্রেফতার করছেনা পুলিশ।  ভূক্তভোগী শাহীন, আফতাব উদ্দিন ও তার বাহিনীর চাঁদাবাজ জিন্নাহ, মানিক, আলাইউন ও সুমন প্রমুখ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের জন্য সাংবাদিক সমাজের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।