Opu Hasnat

আজ ৯ ডিসেম্বর শুক্রবার ২০২২,

সৈয়দপুর রেলস্টেশনে বুকিং সহকারীর বিরুদ্ধে নারী যাত্রীকে লাঞ্ছিতের অভিযোগ নীলফামারী

সৈয়দপুর রেলস্টেশনে বুকিং সহকারীর বিরুদ্ধে নারী যাত্রীকে লাঞ্ছিতের অভিযোগ

নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনের একটি কক্ষে আটকে এক নারী যাত্রীকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতের অভিযোগ উঠেছে স্টেশনের বুকিং সহকারীসহ চার কর্মচারীর বিরুদ্ধে। বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টার দিকে স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে এ ঘটনা ঘটে। লাঞ্ছিতের শিকার ওই সৈয়দপুর শহরেরই বাসিন্দা।

জানা গেছে, ওইদিন সন্ধ্যায় ওই নারী আগামী ১ অক্টোবর ঢাকাগামী আন্তনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিটের জন্য স্টেশনে যান। কিন্তু কাউন্টারের বুকিং সহকারী জানান, উক্ত তারিখের কোনো টিকিট নেই। তবে তিনি ওই নারী যাত্রীকে কালোবাজারে টিকিট পেতে সৈয়দপুর প্লাজার গ্লোবাল কম্পিউটারের দোকানে যাওয়ার পরামর্শ দেন। সেখানে ছয়টি টিকিটের মূল্য হিসেবে গ্লোবাল কম্পিউটারের মালিক মনোয়ার হোসেন ওই নারী ট্রেনযাত্রীর কাছে ৩ হাজার ২০০ টাকা গ্রহণ করে একটি স্লিপ দিয়ে পুনরায় স্টেশনের বুকিং সহকারীর কাছে পাঠান।

ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, বুকিং সহকারী জাহেদুল ইসলাম রনিকে ওই স্লিপ দেওয়ার পর তাঁকে আক্কেলপুর থেকে ঢাকা পর্যন্ত চারটি টিকিট ১৫০০ টাকা (আসন ছ কোচের ৮৬,৯০, ৯১,৯২) এবং পার্বতীপুর থেকে জয়পুরহাট পর্যন্ত দুইটি টিকিট ৩০০ টাকা (আসন ছ কোচের ৫২,৫৬) মূল্যের টিকিট প্রদান করেন। এ সময় সৈয়দপুর স্টেশন থেকে ঢাকা পর্যন্ত টিকিট প্রদান না করায় এবং দেওয়া টিকিটের মূল্য ১৮০০ টাকার স্থলে ৩২০০ টাকা নেওয়ার কথা তোলায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। এক সময় আরও দুজন রেল কর্মচারী মিলে নারী যাত্রীকে টেনে-হিঁচড়ে বুকিং সহকারীর কক্ষে আটকে মহিলা রেল কর্মচারীসহ চারজন মিলে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। দেয়ালের সঙ্গে মাথা চেপে ধরে চর-থাপ্পড় মারতে থাকে তারা। একপর্যায়ে টিকিট ও তাঁর ব্যবহৃত মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়।

সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনের প্রধান বুকিং সহকারী মাহবুব হোসেন বলেন, নারী ট্রেনযাত্রীকে লাঞ্ছিত করার ঘটনা সত্য নয়। তিনি শহরের কোন স্থান থেকে কত টাকার বিনিময়ে টিকিট সংগ্রহ করেছেন তা আমাদের জানা নেই। বুকিং থেকে তাঁর টিকিট প্রিন্ট করে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিউল বলেন, স্টেশনে টিকিট সংগ্রহের বিষয়ে লাঞ্ছিতের ঘটনায় বুকিং সহকারী জাহেদুল ইসলাম রনির বিরুদ্ধে এক নারী লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। এ অভিযোগে অজ্ঞাত রেলওয়ের আরও কয়েকজন কর্মচারীর কথা উল্লেখ করা রয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।