Opu Hasnat

আজ ১৭ এপ্রিল শনিবার ২০২১,

ঢিলেঢালা প্রথম দিনের লকডাউন

দৌলতদিয়ায় পারের অপেক্ষায় শত শত পন্যবাহি ট্রাক রাজবাড়ী

দৌলতদিয়ায় পারের অপেক্ষায় শত শত পন্যবাহি ট্রাক

রাজবাড়ীতে অনেকটা ঢিলেঢালাভাবেই পালিত হলো প্রথম দিনের লক ডাউন। করোনা সংক্রমনের সরকারের বেধে দেওয়া ১৮ দফা বা লক ডাউনের তেমন প্রভাব পরেনি রাজবাড়ীতে। সোমবার সকাল থেকেই প্রতিটি বাজারে বাজারে ছিলো উপচে পড়া ভীর। মানুষ যেন ঈদের আনন্দ নিয়েই কেনাকাটায় ঝুকে পরেছিলো। এদিকে সকাল থেকে বাজারে প্রশাসনের তেমন কোন তৎপরতা চোখে পরেনি।

অপরদিকে, দেশের গুরুত্বপূর্ন নৌরুট দৌলতদিয়া পাটুরিয়ায় সোমবার সকাল সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত স্বাভাবিক ছিলো ফেরি পারাপার। যে কারনে যারা ঢাকা থেকে এসেছেন তারা স্বস্তিতেই নদী পার হয়ে গন্তব্যে যেতে পেরেছেন। তবে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষেরন নির্দেশে সকাল সাড়ে ১১ টার সময় পুরোপুরি ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয় ঘাট কর্তৃপক্ষ। ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় ঘাট এলাকায় বাড়তে থাকে পন্যবাহি ট্রাকের সাড়ি।

সোমবার বিকেলে সরেজমিনে দৌলতদিয়া ঘাটে গিয়ে দেখাযায়, দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা খুলনা মহা সড়কের ক্যানেল ঘাট পর্যন্ত সাড়ে তিন কিলোমিটার এলাকায় এক সাড়িতে পারের অপেক্ষায় আটকে আছে অন্তত সাড়ে তিনশত পন্যবাহি ট্রাক।

অপরদিকে, দৌলতদিয়া ফেরিঘাট থেকে বারো কিলোমিটার পিছনে রাজবাড়ী কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহা সড়কের গোয়ালন্দ মোড় থেকে আহলাদিপুর পর্যন্ত আরো তিন কিলোমিটার পর্যন্ত আটকে আছে ৩ শতাধীক পন্যবাহি ট্রাক।

এ সময় দৌলতদিয়া ঘাটে আটকে থাকা পন্যবাহি ট্রাকের চালক কাওসার মোল্লা বলেন, আমি ফরিদপুর জেলার কৃঞ্চপুর ইউনিয়নের শোলডুবি এলাকা থেকে মিষ্টি কুমড়া ও নিয়ে ঢাকায় যাচ্ছি। কিন্তুু ঘাটে আশার পর ৫ থেকে ৬ ঘন্টা বসে আছি। কখন যে ফেরিতে উঠবো তা জানি না। পচনশীল পন্যের ট্রাকে অগ্রাধীকার থাকলেও বসে থাকতে হচ্ছে। 

গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় আটকে থাকা এমকে কোর্গো সার্ভিসের চালক রবি দাস বলেন, রবিবার রাতে গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় এসে আটকে আছি। ফেরি চলাচল বন্ধ তাই ঢাকায় যেতে পারছি না। যেতে পারবো কিনা তারও কেউ সদউত্তর দিতে পারছে না। রাস্তায় খাওয়া রাস্তায় থাকা গরমে টেনশনের মধ্যে দিয়ে কাটছে সময়।

বিআইডবিøটিসি দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের সহকারী ম্যানেজার খোরশেদুল আলম বলেন, লকডাইনের কারনে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে জরুরী ভিত্তিতে জরুরী যানবাহন যে এ্যাম্বুলেন্স, পচনশীল পন্যবাহি পন্যবাহি ট্রাক করোনা ভাইরাস সংক্রমনরোধে ব্যবহৃত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পারাপারে দুটি ফেরি রাখা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না আশা পর্যন্ত এভাবেই চলবে পারাপার।