Opu Hasnat

আজ ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ২০২০,

খাগড়াছড়ি ৯ উপজেলায় পেঁপে চাষে সফলতা কৃষি সংবাদখাগড়াছড়ি

খাগড়াছড়ি ৯ উপজেলায় পেঁপে চাষে সফলতা

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা ৯ উপজেলায় বাণিজ্যিক ভিত্তিতে পেঁপে চাষ ক্রমেই বাড়ছে। এতে বহু উদ্যোক্তা যেমন আর্থিক উপার্জনের পথ খুঁজে পেয়েছে, তেমনি বহু মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে পেঁপে চাষ নিকট অতীতে খাগড়াছড়িতে হয়নি বললেই চলে। কিন্তু গত চার বছর ধরে অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। বহু উদ্যোক্তা উচ্চ ফলনশীল পেঁপে চাষ করে বেশ লাভবান হয়েছেন। খাগড়াছড়ি জেলা সদরের সুরেন্দ্র মাস্টার পাড়া ও শিব মন্দির এলাকায় বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে বেশ কয়েকটি পেঁপে বাগান ইতি মধ্যে গড়ে উঠেছে।

চাষীরা জানান, পেঁপে চাষে অর্থ বিনিয়োগ করলে খুব দ্রুত তা ফিরে পাওয়া যায়। এটি বেশ লাভজনক। অর্থাৎ পেঁপে চাষে অর্থ বিনিয়োগ করলে পাঁচ মাসের পর থেকে বিনিয়োগের অর্থ ফেরত পাওয়া শুরু হয়। তার মানে পেঁপে বাগানের পাঁচ মাসের পর থেকে ফলন পাওয়া শুরু হয়।

এই এলাকার সবচেয়ে বড় বাগানের মালিক হলেন সুজন চাকমা। তিনি জানালেন, তারা তিন বন্ধু মিলে চার একর পতিত জমি, চার বছরের জন্য লিজ নিয়ে পেঁপে বাগান শুরু করেছেন এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে। লিজ নেয়া জায়গায় তারা চার হাজার উচ্চ ফলনশীল রেডলেডি জাতের পেঁপে চারা রোপণ করেন। আগস্ট মাস থেকে বাগানে ফলন শুরু হয়। এর আগে তারা পেঁপে চারার সাথে সাথে ফসল হিসেবে খিরা রোপণ করেছিলেন। সেই খিরা বিক্রি করে তারা পাঁচ লক্ষ টাকা আয় করেছিলেন। খিরা থেকে উপার্জিত আয় ও নিজেদের বিনিয়োগ করা অর্থ মিলে তারা এ পর্যন্ত মোট সাড়ে ১৩লাখ টাকা খরচ করেছেন। তিনি আরো জানান, ইতিমধ্যেই তাদের বাগানের বিনিয়োগ করা অর্থ তুলতে পেরেছেন।

অক্টোবর মাস থেকে এই বাগানটি তারা এক ব্যবসায়ীর কাছে ৬৫লাখ টাকায় লিজ দিয়েছেন। এই লিজ এর মেয়াদ ৩১ চৈত্র (১৩ এপ্রিল) পর্যন্ত। ওই ব্যবসায়ী বর্তমানে বাগান থেকে প্রতি সপ্তাহে ১০-১২টন পেঁপে সংগ্রহ করেন। এই পেঁপে সে ঢাকা, চট্টগ্রাম, ফেনী, কুমিল্লায় সরবরাহ করেন।

শিব মন্দির এলাকার আরেক চাষী দেবব্রত চাকমা জানান, পেঁপে চাষ লাভজনক তবে চাষীকে চাষের কৌশল জানতে হবে ও পরিশ্রম করার মানসিকতা থাকতে হবে।

খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, এ বছর খাগড়াছড়ি জেলায় ৩৯২হেক্টর জমিতে পেঁপে চাষ হচ্ছে। গত বছরের তুলনায় এই আবাদের পরিমাণ ১২০হেক্টরের বেশি।

খাগড়াছড়ি পাহাড়ি কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মুন্সি রশিদ আহমদ জানান, পাহাড়ি এলাকায় পাহাড়ের পাদদেশে সমতল জায়গাগুলোতে পেঁপে চাষ খুবই উপযোগী। ইদানিং বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে পেঁপে চাষ খাগড়াছড়িতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। যা এই এলাকার অর্থনৈতিক উন্নয়নে বড় ভূমিকা রাখবে।