Opu Hasnat

আজ ২৩ জানুয়ারী শনিবার ২০২১,

দামুড়হুদা উপজেলা প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র চলছে কর্মকর্তা কর্মচারী বিহীন চুয়াডাঙ্গা

দামুড়হুদা উপজেলা প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র চলছে কর্মকর্তা কর্মচারী বিহীন

রাজস্ব খাতের কোন জনবল ছাড়াই  চলছে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার শিল্পনগরী দর্শনায় উপজেলা প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র টি। প্রাণী সম্পদ ও ডেইরী উন্নয়ন প্রকল্পের তিন জন অদক্ষ কর্মকর্তা কর্মচারী দিয়ে চললছে প্রতিষ্ঠানটি। উপজেলার দর্শনা এলাকায় প্রচুর পরিমান পশু খামার রয়েছে। সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এলাকার এসব খামারীরা।  

প্রণী সম্পদ অফিস সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার শিল্পনগরী দর্শনায় ২০০৭ সালে ৪২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে প্রতিষ্ঠান টির দ্বিতীয় ভবন নির্মান করা হয়।এরপর খেকে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চললে ও একজন কম্পাউডার মোসারফ হোসেন সেবা দিয়ে আসছিলেন এখানে। গত চার মাস আগে সে অবসরে যাবার পর খেকে সেখানে রাজস্ব খাতের কোন কর্মকর্তা কর্মচারী নেই। বর্তমানে ২৩লক্ষ টাকা ব্যয়ে তৃতীয় তলায় প্রশিক্ষনের জন্য একটি কক্ষের কাজ চলমান প্রার্ণীসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্রটিতে একজন ভেটেনারী সার্জন, একজন কম্পাউন্ডার, একজন ড্রেসার ও একজন প্রজন্নন কর্মির পদ থাকলে ও সকল পদই রয়েছে শূন্য। বর্তমানে প্রাণী সম্পদ ও ডেইরী উন্নয়ন প্রকল্পের একজন প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ও দুইজন সহকরী দিয়ে চলছে প্রতিষ্ঠানটি কার্যক্রম। এই এলাকায় বেশ কিছু বলদ, গাভি, ছাগল, হাস ও মুরগির খামার রয়েছে। এছাড়া ও প্রায় প্রতি বাড়ীতেই গরু মোটাতাজা করনসহ ছাগল,হাস,মুরগী পালন করে থাকে এলাকার কৃষকগণ। দক্ষ কোন কর্মকর্তা কর্মচারী না থাকায় সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে খামারিসহ পশু পালন কারীরা। 

দর্শনা ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামের আর জে এগ্রো ফার্মের মালিক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, তার খামারে ১০টি গরু, ৪০টি, ছাগাল ১৫০টি হাস ও প্রায় ২০০ কবুতর রয়েছে। তিনি দর্শনা প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র থেকে তেমন কোন সুবিধা পাননা। কারন এখানে প্রশিক্ষন প্রাপ্ত কোন ডাক্তার নেই। কোন প্রয়োজনে দামুড়হুদা প্রনি সম্পদ অফিসে যেতে হয়। গরু, ছাগল, হাস, মুরগী ও পশু পাখির কোন সমস্যা দেখা দিলে দামুড়হুদা প্রানি সম্পদ অফিসে ফোন দিলেই প্রানি সম্পদ অফিসার ডাঃ মসিউর রহমান দামুড়হুদা থেকে ছুটে আসে। আমাদেরকে ও ছুটে যেতে হয় দামুড়হুদা অফিসে। এতে করে অনেক সময় নষ্ট হয়। বাধ্য হয়ে অনেক সময় গ্রাম্য পশু চিকিৎসক দিয়ে গরু ছাগল চিকিৎসা করাতে হয়।দক্ষ চিকিৎস নিয়োগ দিলে আমরা এখান থেকে অনেকটাই সুবিধা পেতে পারি আমরা দর্শনা থেকেই আমাদের সকল কাজ শেষ করতে পারি। তাই এখানে প্রয়োজনিয় সংখক জনবল প্রয়োজন। জনবল দিলে আমাদের আর এত সময় নষ্ট করে দামুড়হুদা অফিসে যেতে হয়না।

দামুড়হুদা উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মশিউর রহমান বলেন, দর্শনা পৌর এলাকায় অনেক গুলো ছোট বড় গরু, ছাগল, হাস ও মুরগীর খামার রয়েছে।কিন্তু এখানে কোন দক্ষ কোন জনবল নেই। তার নিজেরই দামুড়হুদা প্রনি সম্পদ ও দর্শনা প্রানি সম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্রটি দেখা শোনা করতে হয়। প্রার্ণী সম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র টিতে দক্ষ কোন জনবল না থাকায় ছোট বড় খামারীসহ সাধারন পশু পালন কারীরা কিছুটা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এখানে একজন ভেটেনারী সার্জন, একজন কম্পাউন্ডার, একজন ড্রেসার ও একজন প্রজন্নন কর্মির খুবই দরকার। প্রয়োজনীয় জনবলের জন্য উদ্ধতন কতৃপক্ষের নিকট লেখা লেখি করা হচ্ছে আশা করা যাচ্ছে দ্রুত এর সমাধান হবে। 

এই বিভাগের অন্যান্য খবর