Opu Hasnat

আজ ৩০ অক্টোবর শুক্রবার ২০২০,

সৈয়দপুরে ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান ব্যার্থ নীলফামারী

সৈয়দপুরে ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান ব্যার্থ

অতিরিক্ত পনের দিন সময় বাড়িয়ে দিয়েও নীলফামারী সৈয়দপুরে চলতি মৌসুমে সরকারিভাবে বোরো ধান-চাল সংগ্রহ অভিযানের লক্ষ্যমাত্রা ব্যার্থ হয়েছে। তবে রংপুর বিভাগের এ উপজেলাতে চাল সংগ্রহে সর্বোচ্চ লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে বলে দাবী কর্তৃপক্ষের। খাদ্য গুদামে ধান সংগ্রহের অর্জিত হার মাত্র ৯ দশমিক ৪১ শতাংশ, সিদ্ধ চাল ৯৭ দশমিক ১৫ শতাংশ এবং আতপ চাল সংগ্রহের অর্জিত হার ৯২ দশমিক ৩২ শতাংশ।

খাদ্য বিভাগ সূত্র জানায়, চলতি বছরের ২০ মে থেকে বোরো ধান-চাল সংগ্রহ শুরু হয় এবং তা গত আগষ্ট মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত তা নির্ধারিত ছিল। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে লক্ষ্যমাত্রার সিংহভাগ পূরণ না হওয়ায় দু’সপ্তাহ সময় বাড়িয়ে দিয়ে চলতি মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয় হয়।

শহরের রসুলপুরে অবস্থিত খাদ্য গুদামের এবারের সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ধান ১৫৯৪ মেট্রিকটন, সিদ্ধ চাল ২৬৬৩ মেট্রিকটন এবং আতপ চাল ৮৪ মেট্রিকটন। খাদ্য গুদামটিতে বেঁধে দেওয়া সময় ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সংগৃহীত পরিমাণ যথাক্রমে ধান মাত্র ১৫০ মেট্রিকটন, সিদ্ধ চাল ২৫২৭ দশমিক ১৭ মেট্রিকটন এবং আতপ চাল ৯২ দশমিক ৩২ মেট্রিকটন।

বোরো মৌসুমে ধান ক্রয়ের জন্য ১ হাজার ৫’শ ৯৬ জন কৃষককে লটারির মাধ্যমে নির্বাচিত করা হয়। এছাড়া সৈয়দপুরের আফজাল অটো রাইস মিল ইউনিট-১, ইউনিট-২, ইউনিট-৩, মেসার্স ইউনিক অটো রাইস মিল এবং মেসার্স সানি অটো রাইস মিল হতে উল্লেখিত পরিমাণ চাল সংগ্রম করা হয়। তবে খাদ্য গুদামে ধান দিতে গেলে ব্যাংক হিসাব খোলা, পরিবহন ব্যয়, আদ্রতা যাচাইসহ নানা সমস্যার কারণে তেমনটা উৎসাহিত নন বলে জানান অনেক কৃষক।

সৈয়দপুর খাদ্যগুদামের (ওসি এলএসডি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফজলুল হক রংপুর বিভাগের সৈয়দপুরে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ চাল সংগ্রহ করা হয়েছে বলে দাবি করেন। তিনি আরও জানান, ধান অতিবৃষ্টি, বন্যা কারণে কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহে কিছুটা সমস্যায় পড়তে হয়েছে।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর