Opu Hasnat

আজ ৩০ সেপ্টেম্বর বুধবার ২০২০,

আসন্ন পৌর নির্বাচন সৈয়দপুরে আ’লীগ ও বিএনপিতে ভোটের হাওয়া নীলফামারী

আসন্ন পৌর নির্বাচন সৈয়দপুরে আ’লীগ ও বিএনপিতে ভোটের হাওয়া

আগামী ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসের মধ্যে পৌরসভার নির্বাচন করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গত ২৩ আগস্ট অনুষ্ঠিত কমিশনের সভায় ওই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ইসি সচিবালয়ের পক্ষ থেকে নভেম্বরের মাঝামাঝিতে তফসিল দিয়ে ডিসেম্বরের শেষ নাগাদ অথবা ডিসেম্বরে তফসিল দিয়ে জানুয়ারিতে ভোট করার চিন্তা করা হচ্ছে। 

ইসির সূত্র জানায়, পৌরসভার মেয়াদ শেষ হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে ভোট গ্রহণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ হিসাবে যেসব পৌরসভার মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে সেগুলোতে নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে ফেব্রæয়ারির মধ্যে ভোট করতে হবে। ফলে ইসি সচিবালয় ২৩৪টি পৌরসভার নির্বাচন ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসের মধ্যে করার প্রস্তুতি নিয়ে এগুচ্ছে। ইসির এমন প্রস্ততির খবরে ভোটের হাওয়া বইতে শুরু করেছে নীলফামারীর সৈয়দপুরে। কারণ ইসির ভোট অনুষ্ঠানের তালিকায় সৈয়দপুর ও জলঢাকা পৌরসভা রয়েছে। 

ফলে আসন্ন পৌর নির্বাচনে সম্ভাব্য মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা নেমে পড়েছেন ভোটের মাঠে। এদিকে সৈয়দপুর পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতারা সম্ভাব্য প্রার্থী হতে প্রস্ততি নিতে শুরু করেছেন। ইতোমধ্যে মেয়র ও কাউন্সিলর পদের মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্রচার শুরু করেছেন। অনেকে গণসংযোগ শুরু করেছেন বিভিন্ন কমিউনিটি নেতাদের সঙ্গে। নির্বাচনকে ঘিরে বড় দুই দলে মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারা বেশী তৎপর হয়ে উঠেছেন। 

বিশেষ করে মেয়র পদে দলের মনোনয়ন নিতে জেলা ও কেন্দ্রের শীর্ষ নেতাদের আশীর্বাদ পেতে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখছেন। অনেকে ঢাকায় অবস্থান করে দলের নীতি নির্ধারক নেতাদের গ্রীণ সিগন্যাল পাওয়ার চেষ্টা করছেন। একই সঙ্গে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের সমর্থন পেতে ঘরোয়া বৈঠকসহ সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়িয়েছেন। ফলে দলের মধ্যে নানামুখী গ্রুপিং-লবিং দেখা যাচ্ছে। 

সৈয়দপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে মাঠে নেমেছেন সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও সাবেক মেয়র আখতার হোসেন বাদল, নারী আসনের সংসদ সদস্য রাবেয়া আলীমের পুত্র উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা প্রকৌশলী একেএম রাশেদুজ্জামান রাশেদ, শহীদ পরিবারের সন্তান ও পৌর আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক সাখাওয়াৎ হোসেন খোকন, সৈয়দপুর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোস্তফা ফিরোজ। 

আলোচনায় আছেন সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও শহীদ পরিবারের সন্তান মহসিনুল হক মহসিন। এসব নেতারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজে এবং তার সমর্থকরা ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে নানামুখী প্রচারণা চালাচ্ছেন। এসব প্রচারণায় ভোটারদের দোয়া ও আশীর্বাদ কামনা করা হয়েছে। এদের মধ্যে উপজেলা আ’লীগ সভাপতি আখতার হোসেন বাদল ঘরোয়া বৈঠকে মেয়র পদে নিজের প্রার্থীতা জানান দিয়েছেন। অপরদিকে বিএনপির প্রার্থী হিসাবে আলোচনায় আছেন বর্তমান মেয়র অধ্যক্ষ মো. আমজাদ হোসেন সরকার, সৈয়দপুর জেলা বিএনপি নেতা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড. ওবায়দুর রহমান, বিএনপি নেতা ও ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি প্রভাষক শওকত হায়াৎ শাহ ও বিএনপি নেতা শামসুল আলম। 

তবে এর বাইরেও আ’লীগ ও বিএনপির কয়েকজন নেতা গোপনে প্রস্ততি নিচ্ছেন বলে শোনা যাচ্ছে। আসন্ন পৌর নির্বাচনে বড় দুই দল ছাড়াও অন্যান্য দলের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে অনেকের নাম শোনা যাচ্ছে। এদের মধ্যে রয়েছেন জাতীয় পার্টির ঠিকাদার জয়নাল আবেদীন, ওয়ার্কার্স পার্টির রুহুল আলম মাস্টার। তবে ভোটের হাওয়ায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীদের নিয়ে সর্বত্র আলোচনা হচ্ছে। এ নিয়ে চায়ের আড্ডা, সামাজিক অনুষ্ঠান ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে প্রার্থীর পক্ষে বিপক্ষে নানা বিতর্ক। 

এদিকে গুরুত্বপূর্ণ এ পৌরসভায় কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা তাদের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে গণসংযোগ শুরু করেছেন। প্রার্থীদের তালিকায় বর্তমান কাউন্সিলরের পাশাপাশি সাবেক কাউন্সিলর ও অন্যান্য নতুন মুখও রয়েছেন। ওইসব প্রার্থীরা আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ অন্যান্য দলের সমর্থনও পেতে জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন।