Opu Hasnat

আজ ২৭ সেপ্টেম্বর রবিবার ২০২০,

এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডের বিডিং শুরু ২১ সেপ্টেম্বর অর্থ-বাণিজ্য

এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডের বিডিং শুরু ২১ সেপ্টেম্বর

শেয়ারবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের জন্য এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডকে বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে ইলেকট্রনিক বিডিং সম্পাদনের মাধ্যমে প্রান্তসীমা মূল্য (কাট-অফ প্রাইস) নির্ধারণের জন্য তারিখ দেওয়া হয়েছে। কোম্পানিটির বিডিং আগামী ২১ সেপ্টেম্বর শুরু হবে, যা চলবে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

আইপিওর মাধ্যমে কোম্পানিটি পুঁজিবাজার থেকে ১৫০ কোটি টাকা মূলধন সংগ্রহ করবে। উত্তোলিত টাকা দিয়ে কোম্পানিটি এলপিজি ব্যবসা সম্প্রসারণ, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ ও আইপিও প্রক্রিয়ার খরচ নির্বাহে ব্যয় করবে।   

৩০ জুন সমাপ্ত ২০১৯ হিসাব বছরের সমন্বিত আর্থিক বিবরণী অনুসারে, পুনর্মূল্যায়ন সঞ্চিতিসহ কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ৪৫ টাকা ১৫ পয়সা আর পুনর্মূল্যায়ন সঞ্চিতি ছাড়া এনএভিপিএস ৩০ টাকা ২০ পয়সা। 

গত ০৫ আগস্ট পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৭৩৪তম কমিশন সভায় কোম্পানিটিকে ইলেকট্রনিক বিডিংয়ের মাধ্যমে প্রান্ত-সীমা মূল্য (কাট-অফ প্রাইস) নির্ধারণের জন্য বিডিংয়ের অনুমোদন দেয়া হয়। কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্টস লিমিটেড।

বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় ইলেক্ট্রো মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং প্রতিষ্ঠান এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত। এর পর থেকেই সুনাম ও দক্ষতার সাথে পাওয়ার জেনারেশন, এনার্জি, ইনফ্রাস্ট্রাকচার, কমার্শিয়াল অটোমোটিভ, ইন্ডাস্ট্রিয়াল ও কমার্শিয়াল বিল্ডিং এবং অ্যাসেমব্লিং ও ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে  দক্ষতা ও সুনামের সাথে কাজ করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি।

এনার্জিপ্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড মূলত একটি কর্মী মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান; কেননা প্রতিষ্ঠানটির উল্লেখযোগ্য শেয়ারের মালিক মূলত এই প্রতিষ্ঠানটির কর্মীরা। সুনির্দিষ্ট নিয়মের মাধ্যমে কর্মীদের মধ্যে মুনাফার বিষয়টি বণ্টন করা হয়ে থাকে। যাত্রার শুরু থেকেই এনার্জিপ্যাক কর্মীবান্ধব প্রতিষ্ঠান হিসেবে সকলের মাঝে সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এনার্জিপ্যাক বিশ্বাস করে, আজকের এই সাফল্যের মূল ভিত্তি হলো তাদের অদম্য কর্মীবৃন্দ এবং কর্মীদের সৃজনশীলতা, আস্থা ও পারস্পরিক শ্রদ্ধা এনার্জিপ্যাকের মূল চালিকা শক্তি। প্রতিটি কর্মীর দায়িত্ব, নিষ্ঠা ও নিরলস পরিশ্রমের মাধ্যমেই এনার্জিপ্যাক বাংলাদেশে শক্ত অবস্থান তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে।

এনার্জিপ্যাকের লক্ষ্য হচ্ছে দেশের সর্বস্তরে জ্বালানির ঘাটতি পূরণ করা এবং গ্রাহককে উন্নত সেবা প্রদানের মাধ্যমে একক এবং সমবেতভাবে দেশের মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করা। এজন্যই এনার্জিপ্যাক একটি স্লোগান তার সর্বক্ষেত্রে ধারণ এবং লালন করে, আর তা হলো এনার্জি ওয়ার্কস ওয়ান্ডার’।