Opu Hasnat

আজ ২৯ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ২০২০,

ব্রেকিং নিউজ

মেজর সিনহা হত্যা : চার পুলিশসহ সাত আসামি রিমান্ডে আইন ও আদালত

মেজর সিনহা হত্যা : চার পুলিশসহ সাত আসামি রিমান্ডে

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় চার পুলিশ সদস্যকে আরও সাত দিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হওয়া মামলার তিন সাক্ষীকেও সাতদিনের রিমান্ড আদেশ দেওয়া হয়েছে।

কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর করা আবেদনের প্রেক্ষিতে বুধবার (১২ আগস্ট) কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এ আদেশ দেন। 

মঙ্গলবার মামলার আসামি এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন ও কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মামুনের বিরুদ্ধে রিমান্ড আবেদন করেছিল র‌্যাব।

এরও আগে ওই চার পুলিশ সদস্যকে কক্সবাজার জেলা কারাগার ফটকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। তাদের সেই জিজ্ঞাসাবাদ সম্পন্ন করেছে র‌্যাব। তবে একইদিন টেকনাফ বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির প্রত্যাহার হওয়া ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার প্রত্যাহার হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাশ এবং এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিতকে সাতদিনের রিমান্ড দেওয়া হলেও এখনও জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেনি র‌্যাব।

মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে বাহারছড়া ইউনিয়নের মারিচবুনিয়া এলাকা থেকে পুলিশের করা মামলার তিন সাক্ষীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা হলেন, মো. নুরুল আমিন, নিজাম উদ্দিন ও মো. আয়াছ। আদালত এ তিনজনসহ সাতজনের সাতদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ রোডে টেকনাফের বাহারছড়া চেকপোস্টে তল্লাশির সময় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। এ ঘটনায় পুলিশ তড়িঘড়ি করে দুটি মামলা করেন। মামলায় নিহত সিনহার সফরসঙ্গী সিফাতকে আসামি করা হয়। সেই মামলায় বেশ কয়েকজনকে সাক্ষী করা হয়। ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পুলিশের পরিদর্শক লিয়াকত আলী, ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।