Opu Hasnat

আজ ১৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার ২০২০,

খাগড়াছড়িতে করোনায় আরো নতুন ৫ জনসহ মোট আক্রান্ত ৫২০ খাগড়াছড়ি

খাগড়াছড়িতে করোনায় আরো নতুন ৫ জনসহ মোট আক্রান্ত ৫২০

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলাতে গত ২৪ঘন্টায় এক চিকিৎসকসহ আরও নতুন ৫জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫২০জনে। তবে এর মধ্যে ৩৬৫জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। শুক্রবার (৩১ জুলাই) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন খাগড়াছড়ির সিভিল সার্জন ডা: নুপুর কান্তি দাশ। তিনি জানান, এখন পর্যন্ত ৩হাজার ১০৮জনের নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে। তারমধ্যে ফলাফল রিপোর্ট এসেছে ৩হাজার ৯৪জনের।

খাগড়াছড়ি জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য মতে, জেলায় ৯টি উপজেলার এ পর্যন্ত  করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক মুক্তিযোদ্ধাসহ দুইজন মৃত্যুবরণ করেছেন। তবে চট্টগ্রাম ও ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে খাগড়াছড়ি জেলার এক মুক্তিযোদ্ধা ও দুই চিকিৎসকসহ আরও চারজন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এছাড়াও উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন বেশ কয়েক জন। সরকারি নির্দেশনা মেনে চলুন, নিরাপদে থাকুন। 

খাগড়াছড়ি সিভিল সার্জন ডা: নুপুর কান্তি দাশ বিষয়টি নিশ্চিত করে অরো বলেন, এ পর্যন্ত ৩হাজার ১০৮জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট এসেছে ৩হাজার ৯৪জনের। পূর্বের মোট আক্রান্ত সংখ্যা ছিলো ৫শত ১৫জন। নতুন ৫জনসহ এ নিয়ে জেলায় বেড়ে তা মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ৫শত ২০জনে। তার মধ্যে ৩শত ৬৫জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। প্রতিদিন বেড়ে এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫২০জনে। তিনি আরো জানান, আক্রান্তদের মধ্যে বেশির ভাগই পুলিশ ও ডাক্তারসহ স্বাস্থ্যকর্মী। তার মধ্যে পুলিশ সদস্য ১১৮জন, ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মী ২৫জন। 

জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে ভর্তি রয়েছে ১৯জন। জেলায় সর্বমোট ৫২০জন আক্রান্তদের মাঝে পুলিশ সদস্য-১১৮জন, ডাক্তার-৮ ও স্বাস্থ্যকর্মী-১৮জন। তবে এর মধ্যে ৩৬৫জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। তার মধ্যে খাগড়াছড়ি সদরে-২৫জন, দীঘিনালায় এক আনসার সদস্যের মৃত্যুসহ-৭জন, পানছড়িতে চার বছরের এক শিশুসহ-৬জন, রামগড়ে এক বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত্যুসহ-৪জন, মানিকছড়ি-২৪, লক্ষ্মীছড়ি-২, ও মাটিরাঙ্গায়-৫১জন।

খাগড়াছড়ি ও রামগড় পৌরসভা এবং মানিকছড়ি উপজেলাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করার এক মাস পরও তা কার্যকর হয়নি। ফলে জনমনে বাড়ছে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা। কিন্তু এ নিয়ে মাথা ব্যাথা নেই খাগড়াছড়ি স্বাস্থ্য বিভাগে কিংবা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের। সে সাথে জনমনে বাড়ছে বাড়তি উদ্বেগ-উৎকন্ঠা। তারা যেন কোন অদৃশ্য শক্তির বেড়া জালে আটকা। সাধারণ মানুষের উদ্বেগ-উৎকন্ঠার কোন মূল্য নেই তাদের কাছে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে করোনা শনাক্তের ৫২তম দিনে খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিল। এরপর থেকে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় শনাক্ত হতে থাকে করোনা পজেটিভ। সাধারণ ছুটি, ঈদুল ফিতর ও বৈসাবি’র পরপর উদ্বেগজনক হারে বাড়তে শুরু করেছে করোনা আক্রান্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা। সবশেষ শুক্রবার (৩১ জুলাই) পর্যন্ত খাগড়াছড়ি জেলায় ৫২০জন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে ১১৮জনই পুলিশ সদস্য। আক্রান্ত হওয়ার তালিকা থেকে বাদ পড়েনি চিকিৎসক, নার্সরাও আনসার বাহিনী।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর