Opu Hasnat

আজ ৬ জুলাই সোমবার ২০২০,

পাইকগাছায় আম্পানে পানিবন্দি ৮০টি পরিবারের খোঁজ কেউ রাখেনি ! খুলনা

পাইকগাছায় আম্পানে পানিবন্দি ৮০টি পরিবারের খোঁজ কেউ রাখেনি !

ঘূর্নিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ পানিবন্দি ৩ টি গ্রামের ৮০টি পরিবারের খোঁজ কেউ রাখছেনা। তারা অর্ধাহারে অনাহারে দিনানিপাত করছে। পানিবন্দি ৩টি গ্রাম পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি ইউনিয়নের শ্রীফলতলা, চিনামলা ও লতা ইউনিয়নের পুটিমারী গ্রামের আংশিক এলাকা। 

জানাযায়, খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি ইউনিয়নের পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধের বাহিরে  শ্রীফলতলা ও চিনামলা গ্রাম এবং লতা ইউনিয়নের পুটিমারীর গ্রামের আংশিক হাড়িয়া নদীর শেষ সীমানায় ঘূর্নিঝড় আম্পানে নদীর ভাঙ্গনে প্লাবিত সহ বহু ঘরবাড়ি ভেঙ্গে চুরমার হয়েগেছে। ঐ এলাকায় প্রায় ৮০টি পরিবারের বসবাস রয়েছে। আম্পানের ফলে হাড়িয়া নদী ভেঙ্গে ৩টি গ্রামের ঘরবাড়ি বিধস্ত হয়েগেছে। 

এলাকার খবর আজ পর্যন্ত কেউ রাখেনি বলে ঐ এলাকায় বসবাসরত  ছাত্রলীগ নেতা প্রণব কান্তি মন্ডল জানান। 

তিনি আরও বলেন, বিষয়টি আমরা ইতোমধ্যে সংসদ সদস্য আকতারুজ্জামান বাবুকে অবগত করেছি। কপিলমুনি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কওসার আলী জোয়াদ্দার জানান, শ্রীফলতলা, চিনামলা  গ্রাম দুটি হাড়িয়া নদীর মাথায় নদী বেষ্টিত কপিলমুনি ইউনিয়নের মধ্যে এবং পুটিমারী গ্রামের আংশিক লতা ইউনিয়নের মধ্যে। গ্রাম ৩টি না ইউনিয়ন ! না নদী ! এমন একটি সমস্যার মধ্যে পাউবোর বাঁধের বাহিরে হওয়ায় ৮০টি পরিবার অসহায়ের মধ্যে রয়েছে। তাদেরকে আমি সাময়িক কিছু ত্রাণ দিতে সমর্থ হয়েছি। তাই উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের গ্রাম ৩টির দিকে নজর দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।