Opu Hasnat

আজ ১৬ জুলাই বৃহস্পতিবার ২০২০,

বৈরী আবহাওয়া ও অতিবৃষ্টিতে ইরি-বোরো ধান নিয়ে বিপাকে কৃষককুল কৃষি সংবাদনীলফামারী

বৈরী আবহাওয়া ও অতিবৃষ্টিতে ইরি-বোরো ধান নিয়ে বিপাকে কৃষককুল

সাইক্লোন আম্পান ও টর্ণেডোর আঘাত এবং আগাম অতিবৃষ্টির কারণে ইরি- বোরো ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের কৃষকরা। মাঠে থাকা পেঁকে যাওয়া ধান বৈরী আবহাওয়ায় মাটিতে নুইয়ে পড়ায় কৃষকরা তা কেটে নিয়ে উঠানে নিয়ে মাড়াই করতে পারছে না অতিবৃষ্টির কারণে। অনেকে মাড়াই করা ধান ঘরে তুলে তা শুকাতে পারছে না। গত ক’দিন থেকে প্রত্যাশিত রোদ না থাকায় এমন অবস্থা হয়েছে এই জনপদে। কৃষকদের ঘর ও উঠান এখন সিক্ত ধানে ভর্তি। ধানে ফ্যানের বাতাস দিয়ে মিলছে না কাংখিত ফল। ফ্যানের বাতাসে অনেকের হয়েছে সর্দি। 

কিশোরগঞ্জ সদর ইউপির কলকুটি পাড়ার কৃষক রমজান আলী (৪০) ও যদুমনির রওশন আলী (৩০) জানান, সপ্তাহ আগে তারা মাঠ থেকে ধান কেটে নিয়ে রোদ অভাবে তা শুকাতে পারছেন না। প্রায় ৪শ’ মন ধান নিয়ে তারা পড়েছে বিপাকে। 

উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, জ্যৈষ্ঠ মাসে আগাম বৃষ্টিপাতের কারণে এমন সমস্যা হয়েছে। মাড়াইকৃত ধানস্তুপ আকারে না রেখে ছড়িয়ে দিয়ে বাতাসে শুকানোর পরামর্শ দেন তিনি। তিনি আরো বলেন, প্রায় শতকরা ৭০ ভাগ ধান কর্তন ও মাড়াই হয়েছে। এবারে কিশোরগঞ্জ উপজেলায় ১১ হাজার ১শ ৫০ হেক্টর জমিতে ধান উৎপাদনের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। অর্জিত হয়েছে ১১ হাজার ৫০ হেক্টর জমির ধান। এ পর্যন্ত ৭ হাজার ৭শ ৯০ হেক্টর জমির ধান কর্তন ও মাড়াই হয়েছে।