Opu Hasnat

আজ ১৬ জুলাই বৃহস্পতিবার ২০২০,

কিশোরগঞ্জে লেবু চাষে স্বপ্ন বুনছেন ৭৫ বয়সী কৃষক রফিকুল ইসলাম কৃষি সংবাদনীলফামারী

কিশোরগঞ্জে লেবু চাষে স্বপ্ন বুনছেন ৭৫ বয়সী কৃষক রফিকুল ইসলাম

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের নিভৃত পল্লী মাগুরা ইউনিয়নের মাগুরা মন্ডল বাড়ির আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম মন্ডল ৭৫ বছর বয়সে কৃষি উদ্যোক্তা হিসেবে লেবুর চাষ করে সফল হয়েছেন। সংসার জীবনেও এসেছে সচ্ছলতা। এ বয়সে যে কাউকে কর্মময় জীবন থেকে অবসর নিতে হয়। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে  অনেকের ঠাঁই হয় বাড়ির উঠানে, শয্যায় কিন্তু তিনি ঠাঁই গেঁড়েছেন লেবু বাগানে। এ বয়সে তিনি নেশা আর পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছে লেবুর চাষ। এখনো যেন তিনি তার কর্মময় জীবন থেকে অবসর নেয়নি। অদম্য ইচ্ছা আর প্রাণশক্তি তার বয়সের ছাপ হার মানাতে পারেনি সংগ্রামী জীবনকে। কর্মময় জীবনে তিনি ৫ ছেলে ২ কন্যা সন্তানের জনক।  সন্তান-সন্তানিদেরকেও করেছেন উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত।  নিজ উদ্যোগে  ২০১৭ সালে  মাগুরা কলেজপাড়ায় পৈতৃক জমিতে শুরু করেন লেবুর চাষ। আর বাগানের নাম দেন মন্ডল গার্ডেন। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সবুজের সমারোহে ভরপুর। সারিসারি লেবু গাছের সবুজ  পাতার ফাঁকে ফাঁকে  উঁকি দিচ্ছে থোকায় থোকায় লেবু । আর বাগানে অসংখ্য ছোট বড় লেবু  বাতাসে দোল খাচ্ছে,  ফুলের মৌ মৌ  গন্ধে ভরে গেছে পুরো বাগান। কথা হয়  ওই কৃষি উদ্যোক্তা আলহাজ্ব রফিকুল  ইসলামের সাথে তিনি জানান, অন্যান্য ফসলে তেমন লাভ না হওয়ায় অল্প পরিচর্যায়, অধিক লাভের জন্য শুরু করেন লেবুর চাষ।  শুরুতেই ১ বিঘা জমিতে লেবুর চাষ করে দেখতে পারেন লাভের মুখ। তখন থেকে ঝুঁকে পড়েন লেবু চাষে। বর্তমানে তিনি ৩ বিঘা জমিতে লেবুর চাষের পাশাপাশি ৪ বিঘা জমিতে করছেন লিচুসহ হরেক রকমের ফলজ ও বনজ বৃক্ষের চাষাবাদ।

তিনি জানান, তার বাগানে ৫শতাধিকের মত লেবু গাছ আছে। প্রতিবছর সব মিলিয়ে বাগানে খরচ হয় ২০ হাজার টাকার মতো যা বছর শেষে বিক্রি করে আয় করা যায় ১ থেকে দেড় লক্ষ টাকার মত। বিগত দিনগুলোতে  প্রতিটি লেবু ৩ থেকে ৪ টাকা মূল্যে বিক্রয় হয়েছে। বর্তমানে করোনার কারণে লেবুর ব্যাপক চাহিদা হওয়ায়  প্রতিটি লেবু বিক্রি হচ্ছে ৫ থেকে ৬ টাকার মতো। বাজারে চাহিদা ও অনেক বেশি। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে পাশাপাশি রপ্তানি হচ্ছে বিভিন্ন জেলা শহর গুলোতে। 

অপরদিকে, বাগানে দেখা মেলে ঢাকায় কর্মরত বিডি নিয়েলা নিউজ এর  সম্পাদক মাহফুজার রহমান মন্ডলের সাথে  তিনি বলেন, আমার বাবা একজন কর্মঠ ও পরিশ্রমী ব্যক্তি বয়সের শেষ প্রান্তে এসেও সংসার নিয়েই ব্যস্ত থাকেন সারাটি দিন।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম একজন সফল লেবু চাষী। এই বয়সে ওনার লেবু চাষে সফলতা দেখে অনেকেই উপজেলায় লেবু চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। অল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ায় কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে লেবু চাষে অনেক কৃষকদের উৎসাহিত করা হচ্ছে।