Opu Hasnat

আজ ১৬ জুলাই বৃহস্পতিবার ২০২০,

ঘাটে পুলিশের কঠোর নজরদারি : লঞ্চ চলাচল শুরু, ফেরিতে কমেছে যাত্রীর চাপ রাজবাড়ী

ঘাটে পুলিশের কঠোর নজরদারি : লঞ্চ চলাচল শুরু, ফেরিতে কমেছে যাত্রীর চাপ

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার খ্যাত ব্যাস্ততম দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে টানা দুই মাস পর লঞ্চ চলাচল শুরু হয়েছে।

রবিবার সকাল থেকে সরকারের সকল নির্দেশনা, সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে গুরুত্বপূর্ণ এ নৌরুটে লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেয় কর্তৃপক্ষ বিআইডব্লউটিএ কর্তৃপক্ষ।

এর আগে চলতি বছরের ২৬ মার্চ সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হয়। দীর্ঘ দিন লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় লঞ্চ মালিকদের লোকসান হলেও যাত্রী ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়নি। দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাট কর্তৃপক্ষ ঘাটে জীবানুনাশক স্প্রে, সাবান দিয়ে হাত ধোয়া ও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রেখেছেন। 

সরেজমিন রবিবার বিকেলে দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটে গিয়ে দেখা যায়, নির্ধারিত সংখ্যক যাত্রী নিয়ে লঞ্চগুলো ছেড়ে যাচ্ছে, আবার পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে এসে দৌলতদিয়ায় ভিড়ছে। যাত্রী সংখ্যা সীমিত হওয়ায় লঞ্চে তেমন গাদাগাদি নেই। লঞ্চ ঘাটে যাত্রীদের মাইকিং করে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য বার বার সতর্ক করা হচ্ছে।

দৌলতদিয়া ঘাট লঞ্চ মালিক সমিতির ম্যানাজার নুরুল আনোয়ার মিলন জানান, দীর্ঘ দুই মাসের বেশি সময় এরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় লঞ্চ মালিকদের অনেক লোকসান হয়েছে। এখন প্রতিদিন সকাল থেকে আবার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে ১৭টি লঞ্চ চলাচল করবে। প্রতিটি লঞ্চেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে যাত্রী পরিবহন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিএ আরিচা সেক্টরের নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী পরিচালক মোঃ ফরিদুল ইসলাম জানান, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী লঞ্চ চলাচল শুরুর অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রী পরিবহন নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। দীর্ঘ দিন পর লঞ্চ চলাচল শুরু হলেও যাত্রীদের ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়নি বলে তিনি জানান।

এছাড়াও সাধারন ছুটি শেষ ও লঞ্চ চলাচল শুরু হওয়ায় চাপ কমেছে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে। ঘাটে রবিবার বিকেলে অল্প কয়েকটি প্রাইভেটকার ও পন্য পরিবহন ছারা তেমন কোন ভীড় দেখা যায়নি। 

বিআইডব্লউটিসি দৌলতদিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক আবু আব্দুল্লাহ রনি জানান, রবিবার সকালেও একটু যাত্রীর চাপ ছিলো। তবে সকাল ১১ টার পর থেকে এই নৌরুটে যাত্রীর চাপ একেবারেই কমেছে। এই নৌরুটে বর্তমানে ১৭ টি ফেরির মধ্যে ৭ টি ফেরি দিয়ে পারাপার কর হচ্ছে। সোম থেকে গনপরিবহন চলাচল শুরু হলে যানবাহনের বাড়তি চাপ হলে ফেরির সংখ্যাও বাড়ানো হবে। 

এদিকে রবিবারও দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে কাজ করেছে রাজবাড়ী জেলা পুলিশ।

এ সময় গোয়ালন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, করোনা ভাইরাস থেকে বাচতে নীজে সতর্র্ক না হয়ে উপায় নেই। আমারা যাত্রীদের বোঝাচ্ছি তারা যদি নিয়ম না মেনে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে না চলে তবে অনেক বড় বিপদ অপেক্ষা করছে। তাই সকলকে সতর্ক হতে হবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।