Opu Hasnat

আজ ১০ জুলাই শুক্রবার ২০২০,

মুক্তিযোদ্ধা ও ছাত্রনেতা রফিকুল ইসলামের ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ রংপুরমুক্তিবার্তা

মুক্তিযোদ্ধা ও ছাত্রনেতা রফিকুল ইসলামের ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী আজ

১৯৭১ সালে পাকবাহিনীর ক্যাপ্টেন আব্বাসিকে আক্রমণ ও ক্যান্টনম্যান্ট ঘেরাও আন্দোলনকে সংগঠিত করার পেছনে রফিকুল ইসলাম গোলাপের ভূমিকা কে না জানে। তারও আগে রফিকুল ইসলাম গোলাপ দুঃসাহসিকভাবে রংপুরে সরকারিভাবে প্রথম পতাকা উত্তোলণ করেছিলেন। তার সময়ের অনেকের মতে তিনি ছিলেন একজন সাহসী, সদালাপী ও সুসংগঠক। মুক্তিযুদ্ধে রংপুরের যোদ্ধাদের সংগঠিত করায় তার অবদান চিরস্মরণীয়।

রংপুর ক্যান্টমেন্ট ঘেরাও আন্দোলনের প্রথম সারির নেতা রফিকুল ইসলাম গোলাপ। তার জীবদ্দশায় লিখেছিলেন ক্যান্টমেন্ট ঘেরাও আন্দোলনের সঠিক ইতিহাস। পাশাপাশি লিখেছিলেন ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধে রংপুরের সাংস্কৃতির আন্দোলন, সাধারণ মানুষের অবদান ইত্যাদির নানান গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। যা গত ২০২০ এর একুশে গ্রন্থমেলায় ‘আন্দোলন-সংসগ্রাম’ শিরোনামে প্রকাশিত হয়। বইটি প্রকাশের সাথে সাথে প্রথম মুদ্রণ শেষ হলে দ্বিতীয় মুদ্রণ করতে হয়।

রফিকুল ইসলাম গোলাপের লেখায় উঠে এসেছে ১) ভাষা আন্দোলন মূলত রাজনৈতিক; ২) মুক্তিযুদ্ধে রংপুরের সাংস্কৃতিক পটভূমি; ৩) স্বাধীনতা সংগ্রাম : রংপুরের সাধারণ মানুষের অবদান, ৪) ৩ মার্চ : রংপুরে শহিদ ত্রয়ী প্রথম শহিদ শংকু সমজদার, ৫) ৩রা মার্চ : শহিদ ওমর আলী, ৬) ৩ রা মার্চ : শহিদ আবুল কালাম আজাদ, ৭) উপেক্ষিত তিন শহিদ! ৮) ২৮ মার্চ ক্যান্টনমেন্ট ঘেরাও : রংপুর বাসীর দুঃসাহসী অভিযান, ৯) শহিদ মুখতার ইলাহীর কথা, ১০) শহিদ রনি রহমান, মৃত্যুঞ্জয়ী প্রাণ, ১১) মুক্তিযোদ্ধা আবুল মনসুর আহমেদ, ১২) মুক্তিযুদ্ধে বি.এল.এফ (মুজিব বাহিনী) এর ভূমিকা, ১৩) ব্রিগেড আকারে তিনটি ফোর্স।

তার স্মৃতির প্রতি মূল্যায়ন ও স্মৃতিভাষ্যতে মুক্তিযোদ্ধা মো. আফজাল লিখেছেন প্রথম সারির নেতা ছিলেন গোলাপ। বইটিতে তাকে আলোকিত মানুষের প্রতিভূ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন মুক্তিযোদ্ধা হাফিজুল হক সরকার লীলু এবং তার স্মৃতিচারণ করেন মুক্তিযোদ্ধা মো. ফজলুল হক, মো. জাহাঙ্গীর, সদরুল আলম দুলু, মকসুদার রহমান চৌধুরী রঞ্জু, আকলিমা খন্দকার। এছাড়াও সাহিত্য ও সংস্কৃতি কর্মী ডা. মফিজুল ইসলাম মান্টু, রেজাউল করিম মুকুল, শাহরিয়াদ আনওয়ার শুভ।

বইটি সম্পাদনা করেছেন মুক্তিযুদ্ধ গবেষক অপূর্ব শর্মা ও সহকারী সম্পাদক ছিলেন গাজীপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার রমিতা ইসলাম ছড়া। প্রকাশ করেছে রংপুরের জ্ঞানের বাতিঘর আইডিয়া প্রকাশন, প্রকাশকাল : অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০, প্রচ্ছদ শিল্পী কবি সাকিল মাসুদ, বইটির দাম রাখা হয়েছে ২৫০।

এক কথায় রফিকুল ইসলাম গোলাপের লেখা আন্দোলন-সংগ্রাম বইটি নতুন প্রজন্মের জন্য মুক্তিযুদ্ধের গুরুত্বপূর্ণ দলিল। এই বইটি পাঠের মধ্য দিয়ে নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে রংপুরে পাকিস্তানি বাহিনীর নির্মম নির্যাতন ও রংপুরের মুক্তিকামী জনতার সংগ্রামের সঠিক ইতিহাস।

রফিকুল ইসলাম গোলাপ ছাত্রাবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতি করতেন। ঊনসত্তরের উত্তাল দিনগুলোতে ছিলেন মিছিলের অগ্রভাগে। তিনি ছিলেন তৎকালীন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি। জনপ্রিয় ছাত্রনেতা এবং রাজপথ কাঁপানো তুখোড় বক্তা। ১৯৭১ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে দক্ষ সংগঠকের ভূমিকা পালন করেন। ৩রা মার্চ ১৯৭১ রংপুরের রাজপথে উত্তপ্ত মিছিলের নেতৃত্ব দেন। ২৮ মার্চ রংপুর ক্যান্টনমেন্ট আক্রমণে ছাত্রলীগের নেতা হিসেবে তাঁর নেতৃত্ব ছিলো প্রথম সারির এবং গুরুত্বপূর্ণ। মুক্তিযুদ্ধে সংগঠক হিসেবে যেমন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বপালন করেন তেমনই যোদ্ধা হিসেবেও তিনি ছিলেন অকুতোভয়। দেশ স্বাধীনের পর জাসদের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। রাজনীতির পাশাপাশি শুরু করেন সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ড। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠায় তিনি ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। 

আজ তার ৮তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি গত ২৯ মে ১০১২ সালে পরলোক গমন করেন।

লেখক : কবি ও সম্পাদক, ফিরেদেখা, রংপুর।