Opu Hasnat

আজ ৮ জুলাই বুধবার ২০২০,

উপসর্গহীন ও ঢাকা ফেরতরাই গোবিন্দগঞ্জে করোনা বিস্তারের আশঙ্কা বাড়াচ্ছে গাইবান্ধা

উপসর্গহীন ও ঢাকা ফেরতরাই গোবিন্দগঞ্জে করোনা বিস্তারের আশঙ্কা বাড়াচ্ছে

এল.এন.শাহী, গোবিন্দগঞ্জ থেকে : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সম্প্রতি করোনা ভাইরাস এর স্থানীয়  সংক্রমণ শুরু হয়েছে। এ উপজেলায় গত ১১ এপ্রিল  প্রথম নারায়ণগঞ্জ ফেরত ব্যাক্তি করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর বিভিন্ন সময়ে ঐ পরিবারের অন্য সদস্য, ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশসহ ৯জন আক্রান্ত হয়। তবে এ আক্রান্তগুলোর ক্লাস্টার চিহ্নিত ছিলো কারণ তারা ঢাকা ফেরত এবং তাদের পেশা ঢাকা ফেরত ব্যাক্তিদের সংশ্লিষ্টতা ছিল। যারফলে সহজেই অনুমান করা যেতো যে তারা ঢাকা এলাকার করোনা ক্লাস্টার দাঁড়া সংক্রমিত হয়েছে। 

কিন্তু সম্প্রতি ৩জন শনাক্ত ব্যাক্তির সংক্রমণ নিয়ে বিশেষজ্ঞ মহলে ভিন্ন ভাবনা যুক্ত হয়েছে। এ তিনটি সংক্রমণ বিশেষজ্ঞ মহলে ভাবিয়ে তুলেছে। সম্প্রতি গোবিন্দগঞ্জ পৌর মার্কেটের কাপড় ব্যাবসায়ী সূদর্শনের স্বস্ত্রীক ও উপজেলার গুমাণীগন্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম রিপন  এর আক্রান্তের ক্লাস্টার চিহ্নিত করা সম্ভব হচ্ছে না। জানা যাচ্ছে না যে কাদের দ্বারা বা কোনা ক্লাস্টার দ্বারা এরা সংক্রমিত হয়েছে। 

বিশেষজ্ঞদের ধারণা উপসর্গহীন করোনা জীবাণু বহনকারী ব্যাক্তিদের দ্বারাই সম্ভবত এরা সংক্রমিত হয়েছে। এ উপসর্গহীন করোনা জীবণু বহনকারীদের দ্বারা আরও অন্যরাও আক্রান্ত হওয়ার সুযোগ রয়েছে যারফলে এ উপজেলা করোনা বিস্তার ঝুঁকির মধ্যেই রয়েছে। 

এদিকে আরও ঝুঁকি সৃষ্টি হয়েছে সম্প্রতি ঈদ উপলক্ষে  ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরসহ বহুল করোনা ক্লাস্টার বিশিষ্ট এলাকা হতে আগত ব্যাক্তিদের দ্বারা। সম্প্রতি গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক কর্মকর্তা মজিদুল ইসলাম তার টিম নিয়ে ঢাকা থেকে আগত ব্যাক্তিদের মাঝে বিশেষ পর্যবেক্ষণে তিনিও এমন আশঙ্কা করছেন।

এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক কর্মকর্তা মজিদুল ইসলাম জানান, ঈদের ছুটির মধ্যেও আমাদের কনোনা দ্রুত রেসপন্স টিমসহ মেডিকেল টিম গোবিন্দগঞ্জ উপজেলাবাসীর সেবা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। তিনি বলেন ২৪মে ও ২৫ মে ঈদের দিন এবং ঈদের আগের দিনেও আমরা হটলাইনে ফোন পেয়ে নমুনা সংগ্রহ করেছি এবং বিভিন্ন রোগী পর্যবেক্ষণ করেছি।এদের অনেকেই ঢাকা এবং পার্শ্ববর্তী এলাকা গাজীপুর/নারায়নগঞ্জ ফেরত এবং এদের মধ্যে করোনা উপসর্গ বিদ্যমান।

তিনি গোবিন্দগঞ্জবাসীকে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দেন এবং গাজীপুরসহ বহুল করোনা ক্লাস্টার  বিশিষ্ট এলাকা হতে আগতদের কোয়ারান্টাইনে থাকার পরামর্শ দেন এবং উপজেলাবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শও দেন তিনি। তিনি আরও বলেন সম্প্রতি আক্রান্তদের সংক্রমণের ক্লাস্টার শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর নিশ্চিত করা তথ্য সুত্রে  এ উপজেলায় গত ২৫মে সোমবার ইউপি চেয়ারম্যান এস এম রিপন যুক্ত হয়ে আক্রান্ত সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২জন। এর মধ্যে ২জন মারা গেছে এবং ৮ জন সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরে গেছে এবং দুইজন চিকিৎসাধীন রয়েছে। এদিকে গেল রাতে  গাজীপুর শনাক্তকৃত আরও একজন করোনা রোগী এ উপজেলায় যুক্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে কিন্তু উল্ল্যেখিত ব্যাক্তির পরিচয় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অফিশিয়ালি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর