Opu Hasnat

আজ ১ জুন সোমবার ২০২০,

বড়াইগ্রামে ছিনতাই হওয়া প্রাইভেট উদ্ধার, আটক ৫ নাটোর

বড়াইগ্রামে ছিনতাই হওয়া প্রাইভেট উদ্ধার, আটক ৫

নাটোরের বড়াইগ্রামে চালকের হাত-পা ও মুখ বেধে প্রাইভেটকার ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনার ৮ দিন পর পুলিশ  প্রাইভেটকারটি উদ্ধার করেছে ও ৫ ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- পাবনা  জেলা সদরের গয়েশপুর রথখোলা এলাকার এস্কান প্রামাণিকের ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন (৩৫) ওরফে জ্যাক, সাদিরাজপুর গ্রামের সাইফুল প্রামাণিকের ছেলে হৃদয় হোসেন (২২), একই গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে সোহেল রানা (২৬), কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার বাঁশগ্রামের মৃত আব্দুর রহিমের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২১) এবং লক্ষীপুর জেলার চন্দ্রগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম মান্দারী গ্রামের লুৎফর রহামনের ছেলে মাহবুবুর রহমান শাওন (২০)।

শনিবার দুপুরে নাটোরের পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, গত ১২ মে রনি আলম নামে একজন ব্যক্তি ঢাকা সাভার থেকে পাবনা আসার কথা বলে একটি প্রাইভেটকার ভাড়া করে। এরপর পাবনা পৌঁছার পরে ভাড়ার কিছু টাকা কম আছে বলে চালককে পাবনা শহরের গাছপাড়া এলাকায় নিয়ে আসে। এসময় আগে থেকেই অপেক্ষমান কয়েকজন ছিনতাইকারী প্রাইভেটকার চালকের হাত-পা ও মুখ বেধে ফেলে এবং প্রাইভেটকারটি নিয়ে পাবনা-নাটোর সড়কের বড়াইগ্রাম উপজেলার গোপালপুর এলাকার একটি নির্জন স্থানে চালককে ফেলে দিয়ে চালকের মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগের টাকাসহ প্রাইভেটকারটি নিয়ে পালিয়ে যায়। 

এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানায় মামলা হলে পুলিশ ১৮ মে পাবনা সদর হতে জাহাঙ্গীর ওরফে জ্যাককে আটক করে এবং ছিনিয়ে নেয়া প্রাইভেটকারটি উদ্ধার করে।  পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ১৯ ও ২০ মে আশুলিয়া থানা পুলিশের সহায়তা বাকী ৪জনকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা শুক্রবার আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী দিয়েছে। 

প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আকরামুল হোসেন এবং নাটোর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত এবং অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ।