Opu Hasnat

আজ ৩ জুলাই শুক্রবার ২০২০,

বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের ফাঁসি কার্যকর আইন ও আদালত

বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের ফাঁসি কার্যকর

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি বরখাস্তকৃত ক্যাপ্টেন আব্দুল মাজেদের ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে। শনিবার (১১ এপ্রিল) মধ্যরাত ১২টা ১ মিনিটে কেরাণীগঞ্জে অবস্থিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তার ফাঁসি কার্যকর করা হয়। 

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ঢাকার জেলার মাহবুবুর রহমান। এরই মধ্য দিয়ে এই কারাগারে প্রথমবারের মতো কারো ফাঁসি কার্যকর করা হলো।

রাত সাড়ে ১০টার দিকে কারাগারে প্রবেশ করেন কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা। এছাড়াও অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক কর্নেল মো. আবরার হোসেন, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ঢাকার সিভিল সার্জন আবু হোসেন মো. মইনুল আহসান কারাগারে প্রবেশ করেন। এসময় তারা আব্দুল মাজেদের শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন। এসময় মাজেদকে তওবা পড়ান কারা মসজিদের ইমাম।

এর আগে বুধবার রাতেই রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো তার প্রাণভিক্ষার আবেদনটি নাকচ করা হয়।

শুক্রবার সন্ধ্যায় আবদুল মাজেদের সঙ্গে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পরিবারের ৫ সদস্য সাক্ষাৎ করে। কারা কর্তৃপক্ষের ডাকে সাড়া দিয়ে মাজেদের স্ত্রী, শ্যালক ও চাচা শ্বশুরসহ ৫ সদস্য সেখানে যান।

প্রায় দু’দশক ধরে পলাতক আবদুল মাজেদকে গত সোমবার মধ্যরাতে মিরপুর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে মাজেদকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। পরদিন বুধবার মৃত্যুর পরোয়ানা পড়ে শোনানোর পর সব দোষ স্বীকার করে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চায় আবদুল মাজেদ।

এদিকে, মাজেদের গ্রামের বাড়ি ভোলায় তার লাশ দাফন করতে দেয়া হবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে ভোলা জেলা যুবলীগের সভাপতি মনিরুজ্জামান মনির।

উল্লেখ্য, ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে আব্দুল মাজেদসহ ১২ ঘাতক।