Opu Hasnat

আজ ২৮ মে বৃহস্পতিবার ২০২০,

কালকিনিতে জ্বর-গলা ব্যথায় এক ব্যক্তির মৃত্যু, প্রশাসনের দাবি হার্ট এ্যাটাক মাদারীপুর

কালকিনিতে জ্বর-গলা ব্যথায় এক ব্যক্তির মৃত্যু, প্রশাসনের দাবি হার্ট এ্যাটাক

মাদারীপুরের কালকিনিতে শনিবার রাত ১২টায় এক ব্যক্তির জ্বর-গলাব্যথায় মৃত্যু হয়েছে। এমন খবর রোববার সকালে থেকেই উপজেলার অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারীরা তাদের নিজ আইডিতে পোষ্ট করেন এবং বেশ কয়েকটি জাতীয় পত্রিকার অনলাইনসহ বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে প্রচার হওয়ায় বিষয়টি মুহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। পরে এ বিষয়টি দেখে উপজেলা প্রশাসন বিভিন্ন সংবাদকর্মীদের জানান, ওই ব্যক্তি জ্বর-গলাব্যথায় নয়, হার্ট এ্যাটাক করে মারা গেছে। এতে করে চরম বিপাকে পড়েছেন জনসাধারন।

একাধিক সুত্রে জানাগেছে, উপজেলার কয়ারিয়া এলাকার চরআলিমাবাদ গ্রামের সদর আলীর ছেলে আবদুস সালাম ফকির (৫০) শনিবার সন্ধ্যার পর বাড়ি ফিরে জ্বর-গলাব্যথায় আক্রান্ত হন। পরে রাতে সে মারা যান। এ খবর ওই এলাকা থেকে মুহুর্তের মধ্যে পুরো উপজেলার ছড়িয়ে পড়ে। এমন খবর পেয়ে কালকিনি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে তাৎক্ষনিকভাবে উপস্থিত হন। এরপর শনিবার সকাল থেকেই এ মৃত্যুর খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন লোকজন একের পর এক পোষ্ট করতে থাকে। এতে করে বিভিন্ন দেশ-বিদেশে বিষয়টি মুহর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। পরে মাদারীপুর সিভিল সার্জন ও থানার ওসির বক্তব্য নিয়ে এ খবর বিভিন্ন সংবাদ কর্মীরা তাদের মিডিয়ায় প্রচার করেন। এ প্রকাশিত খবর প্রচারের পর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের জানানো হয়, আবদুস সালাম ফকির জ্বর-গলাব্যথায় নয় সে মাড়া গেছে হার্ট এ্যাটাক করেন। এতে করে চরম বিপাকে পড়েছেন জনসাধারন।

ফেসবুক ব্যবহারকারী সুমন আহম্মেদ ও নাজমুলসহ বেশ কয়েকজন বলেন, আমরা ওই এলাকা থেকে শুনেছি এবং বিভিন্ন ফেসবুকে বিষয়টি ভাইড়াল হয়েছে যে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে। আবার প্রশাসন বলছে হার্ট এ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে। মুলত আমরা সাধারন মানুষ পড়েছি বিপাকে।

উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আলবিধান মোহাম্মদ সানাউল্লাহ বলেন, আমি এবং মেডিকেল অফিসার দুজনে মিলে নিহতের বাড়িতে গিয়ে তার পরিবার এবং আশপাশের লোকজনের সঙ্গে কথা বলেছি। ঘটনাস্থলে গিয়ে অবশেষে জানতে পেরেছি যে সালাম ফকির হার্ট এ্যাটাক করে মারা গেছে।

কালকিনি থানার ওসি মোঃ নাছিরউদ্দিন মৃধা বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারলাম নিহত সালাম ফকির হার্ট এ্যাটাক করে মারা গেছে।

এ ব্যাপারে  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, প্রথমে যেটা প্রচার হয়েছে ফেসবুকে, ওঠা সঠিক নয়। মুলত আমরা অবশেষে জানতে পারলাম সালাম ফকির হার্ট এ্যাটাক করে মারা গেছে।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর