Opu Hasnat

আজ ৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ২০২০,

লোহাগড়ায় সাত বাড়িতে তান্ডব, অন্তঃসত্বাসহ দুই নারী হাসপাতালে নড়াইল

লোহাগড়ায় সাত বাড়িতে তান্ডব, অন্তঃসত্বাসহ দুই নারী হাসপাতালে

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নড়াইলের লোহাগড়ায় সাতটি বাড়িতে তান্ডব চালিয়েছে প্রতিপক্ষের প্রভাবশালীরা। এ ঘটনায় অন্তঃসত্বাসহ দুই নারী গুরুতর আহত অবস্থায় লোহাগড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ঘটনার দিন ওই এলাকায় পুলিশ টহলদারি জোরদার করা হয়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (২০ মার্চ) সন্ধায় উপজেলার নোয়াগ্রাম ইউনিয়নের কলাগাছি বাজারে কাশিপুর ইউনিয়নের চালিঘাট গ্রামের ছায়ফার মেম্বারের ও কলাগাছি গ্রামের আলাউদ্দিন মোল্যার সাথে একই গ্রামের আজগর মোল্যার বাকবিতন্ডা হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুর্বশত্রুতার জেরধরে  ছায়ফার এবং আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে ৪০-৫০ জনে সন্ত্রাসী বাহিনী আজগর মোল্যার সমর্থীত লোকদের বেশকয়েকটি দোকান ও বাড়িঘর ভাঙচুর করে।  এ সময় দোকানে থাকা মালামাল ও বসতবাড়ির মুল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। 

সন্ত্রাসীদের তান্ডবের স্বীকার কলাগাছি গ্রামের রোজিনা বেগম বলেন, বাজারে আলাউদ্দিন মোল্যার সাথে আমাদের বাড়ির পুরুষ মানুষদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। সেটা বাজারেই মিমাংসা হয়ে যায়। কিন্তু কাশিপুর ইউনিয়নের ছরোয়ার মেম্বারকে সাথে নিয়ে আলাউদ্দিন বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে। আমরা এখন খুবই আতঙ্কে আছি। 

একই গ্রামের শিরিনা বেগম বলেন, এশার নামাজের পরপরই পুরুষ শুন্য বাড়িতে হঠাৎ ৪০-৫০ জনের একদল লোক বড় বড় রামদা নিয়ে আমাদের বাড়ি ঘর কোপাতে থাকে। আমি ভয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যাই। 

এ ঘটনায় সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রেহায় পায়নি অন্তঃসত্বা রিতা বেগম। তাকেসহ আরও এক নারীকে বেধড়ক মারধর করে তারা। এতে গুরুতর আহত হয়ে পড়েন তারা। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় হাসপাতালে ভর্তি হন ওই দুই নারী। 

এ ঘটনায় মো. আজগর মোল্যা বাদি হয়ে লোহাগড়া থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কেউ আটক হয়নি।