Opu Hasnat

আজ ২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ২০২০,

ইনিংস ব্যবধানে জিতলো টিম টাইগারস খেলাধুলা

ইনিংস ব্যবধানে জিতলো টিম টাইগারস

অবশেষে টেস্টে জয়ের মুখ দেখলো বাংলাদেশ। একমাত্র টেস্টে জিম্বাবুয়েকে ইনিংস ও ১০৬ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। যা বাংলাদেশের ১৪তম টেস্ট জয় আর দ্বিতীয় ইনিংস ব্যবধানে জয়। 

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এটি বাংলাদেশের ৭ম জয়। আর দেশের মাটিতে সফরকারীদের বিপক্ষে এটি টাইগারদের ৬ষ্ঠ জয়। সেই সাথে দেশের মাটিতে সাদা পোশাকে বাংলাদেশের এটি ১০ম জয়।

এর আগে শেষ তিন টেস্টেই ইনিংস ব্যবধানে হার বরণ করতে হয়েছিল বাংলাদেশের। বাংলাদেশের দেয়া ২৯৫ রানের লিডের জবাবে ব্যাট করতে নেমে চতুর্থ দিনে মধ্যাহ্ন বিরতির পর ১৮৯ রানে গুটিয়ে যায় রোডেশিয়ানরা। বাংলাদেশের হয়ে ৫ উইকেট নেন নাইম হাসান আর তিনটি উইকেট নেন তাইজুল। জিম্বাবুয়ের পক্ষে ইনিংসের সর্বোচ্চ রান আসে মারুমার ব্যাট থেকে (৪১)।

প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়ের ২৬৫ রানের জবাবে মুশফিকুর রহিমের ডাবল এবং অধিনায়ক মুমিনুল হকের সেঞ্চুরিতে ৬ উইকেটে ৫৬০ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। আর দ্বিতীয় ইনিংসে ২৯৫ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাট করতে নেমে তৃতীয় দিনের শেষভাগেই দু’টি উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে।

চতুর্থ দিনে ২৮৬ রানে পিছিয়ে থেকে ব্যাট করতে নামে জিম্বাবুয়ে। আগের দিনের ২ উইকেটে ৯ রান নিয়ে খেলতে নেমে সকালের সেশনেই আরো তিন উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। ৫ উইকেটে ১১৪ রান নিয়ে লাঞ্চে যায় সফরকারিরা। লাঞ্চের পর প্রথম ঘন্টায় সিকান্দার রাজার উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। মুশফিকুর রহিমের ক্যাচ বানিয়ে তাকে ফেরান বিশেষজ্ঞ বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল। সাজঘরে ফেরত আসার আগে ৩ চারে তিনি করেন লড়াকু ৩৭ রান।

অভিজ্ঞ ব্যাটার ফিরলে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় জিম্বাবুয়ে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে লড়তে পারেননি রেগিস চাকাভা। তাইজুলের শিকার হয়ে ফেরেন তিনি। তাতে জয়ের দোরগোড়ায় চলে যায় বাংলাদেশ। সেই রেশ না কাটতেই প্রতিপক্ষ শিবিরে ছোবল মারলেন নাঈম। এবার যাওয়া-আসার মিছিলে যোগ দেন এন্সলে এনদিলোভু।

তাতে জয়টা সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায় স্বাগতিকদের। নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে টিমিসেন মারুমাকে ফিরিয়ে দেন নাঈম। ফেরার আগে ৫ চারে সংগ্রামী ৪১ রান করেন তিনি। আর তাকে শিকার বানিয়ে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো ৫ উইকেট সংগ্রহ করেন টাইগার তরুণ অফস্পিনার। জিম্বাবুয়ে শিবিরে সবশেষ পেরেকটি ঠুকেন তাইজুল। তাতে ইনিংস ও ১০৬ রানের জয়ের আনন্দে মাতেন মুমিনুল বাহিনী। তার নেতৃত্বে প্রথম জয় পেল বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

জিম্বাবুয়ে : ২৬৫/১০ ও ১৮৯/১০ (৫৭.৩ ওভারে)

বাংলাদেশ : ৫৬০/৬ ডিক্লে.।

ফল :  বাংলাদেশ ইনিংস ও ১০৬ রানে জয়ী।

ম্যাচসেরা : মুশফিকুর রহিম।