Opu Hasnat

আজ ২৯ মার্চ রবিবার ২০২০,

কালকিনিতে বিদ্যালয় শহীদ মিনার না থাকায় ক্ষোভ মাদারীপুর

কালকিনিতে বিদ্যালয় শহীদ মিনার না থাকায় ক্ষোভ

মাদারীপুরের কালকিনিতে একটি বিদ্যালয় শহীদ মিনার নির্মিত না হওয়ায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে চাঁপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। বিশেষ করে আগামী ২১ ফেব্রæয়ারী শহীদ দিবস ও আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস অনুষ্ঠান উপলক্ষে পুস্পমাল্য অর্পন নিয়ে মহা দুঃচিন্তায় পরেছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিদ্যালয় ও শিক্ষার্থী সুত্রে জানাগেছে, ২০০০সালে উপজেলার রমজানপুর আইডিয়াল টেকনিক্যাল একাডেমী প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়টিতে প্রায় ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী লেখা-পড়া করছে। এ বিদ্যালয় শিক্ষক রয়েছে ১৪ জন। এরপর বিদ্যালয়টি লেখা-পড়ায় অনেক সুনাম অর্জন করায় ২০০৪ সালে এমপিভুক্ত করা হয়। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠাকালীন থেকেইে বিদ্যালয় চত্বরে একটি শহীদ মিনার নির্মান করা হয়। সেখানে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী মিলে ওই শহীদ মিনারে প্রতি বছরেই আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পুস্পমাল্য অর্পন করে আসছেন। কিন্তু ২০০৮ সালের ২৫ আগষ্ট রাতের আধাঁরে একদল দূর্বৃত্তরা ওই শহীদ মিনারটি হাতুরীপেটা করে মাটির সাথে গুড়িয়ে দেয়। কিন্তু পরে আর সেখানে রহস্যজনক কারনে শহীদ-মিনার আর নির্মিত হয়নি। সেখানে শহীদ মিনার নির্মান করার জন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ  উপজেলা প্রশাসনের কাছে বারবার ধর্না দিয়েছেন। কিন্তু তারপরও সেখানে নির্মিত হয়নি একটি শহীদ মিনার। এ ঘটনায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, আর অল্প কিছু দিন পর পালিত হবে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস। কিন্তু দঃখের বিষয় এখন পর্যন্ত আমাদের বিদ্যালয় শহীদ মিনার নির্মান করা হয়নি। আমরা এখন কোথায় ফুল দেব। আমরাতো আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস পালন করতে মনে হয় পারবনা।

ওই এলাকার ইউপি সদস্য মোঃ নান্নু বলেন, আগে আমরা প্রতিবছর এলাকাবাসীদের নিয়ে ওই বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে ফুল দিতাম। এখন এ বছর কোথায় দেব ফুল।

রমজানপুর আইডিয়াল টেকনিক্যাল একাডেমীর প্রধান শিক্ষক মনির হোসেন আকন বলেন, আমরা বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শহীদ মিনার নির্মান করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছি। কিন্তু কি কারনে নির্মান হচ্ছেনা তা বলতে পারবনা।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেন, বরাদ্দ না থাকায় আপাতত শহীদ মিনারটি নির্মান করা সম্ভব হচ্ছেনা।