Opu Hasnat

আজ ৫ জুলাই রবিবার ২০২০,

বশেমুরবিপ্রবিতে দফায় দফায় সংঘর্ষে তদন্ত কমিটি গঠন ক্যাম্পাস

বশেমুরবিপ্রবিতে দফায় দফায় সংঘর্ষে তদন্ত কমিটি গঠন

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেমুরবিপ্রবি) দুই বিভাগের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনায় ৯ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিসার ড. নূরউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বার্তা থেকে এ তথ্য জানা গেছে। 

এ তদন্ত কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. এম এ সাত্তারের সভাপতিত্বে অন্যান্য সদস্যরা হলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিস্ট্রার অফিসার মোঃ নজরুল ইসলাম, সিএসই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ নেসারুল হক, আইন বিভাগের সভাপতি মানসুরা খানম, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি ড. মোঃ হাসিবুর রহমান, অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ সোলাইমান হোসেন, ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের প্রভাষক মোঃ রাকিবুল ইসলাম, শেখ রাসেল হলের প্রভোস্ট মোঃ ফায়েকুজ্জামান মিয়া (সদস্য সচিব) এবং শেখ রেহেনা হলের প্রভোস্ট মোঃ রোকনুজ্জামান। 

সরেজমিনে জানা যায়, রবিবার (২ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি, লিপু'স ক্যান্টিন, বালির মাঠসহ বিভিন্ন স্থানে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ ও আইন বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে দুপুর ১২টা থেকে দফায় দফায় সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষে উভয় বিভাগের ১৫ জন শিক্ষার্থী আহত হন। আহতদের মধ্যে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ফাহাদ এবং সিফাত এবং আইন বিভাগের শিক্ষার্থী মেহেদী এবং অংকিতকে গুরুতর আহত অবস্থায় ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। 

উল্লেখ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীকে ফোনে উত্যক্তকরণের অভিযোগে আইন বিভাগের ২০১৮-১৯ সেশনের শিক্ষার্থী অংকিতের উপর হামলা চালায় ওই বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এমতাবস্থায়, আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের উপর পাল্টা আক্রমণ করলে দুই বিভাগের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে এবং সংঘর্ষ চলে দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা অবধি। 

উদ্ভুত এ সংঘর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের দ্বারা আইন বিভাগ, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, মার্কেটিং বিভাগ, উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের শ্রেণিকক্ষে ভাঙচুর এবং কেন্দ্রীয় লাইব্রেরিতেও ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ক্যাম্পাসে ইতোমধ্যেই পর্যায়ে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে এবং এ ঘটনায় পুরো ক্যাম্পাসজুড়ে বিরাজ করছে থমথমে অবস্থা। 

এই বিভাগের অন্যান্য খবর