Opu Hasnat

আজ ১০ জুলাই শুক্রবার ২০২০,

নিজাম উদ্দিনের ৫০ একর জমিতে তরমুজের বাম্পার ফলন কৃষি সংবাদসুনামগঞ্জ

নিজাম উদ্দিনের ৫০ একর জমিতে তরমুজের বাম্পার ফলন

সুনামগঞ্জে তহিরপুরে এবার তরমুজের বাম্পার ফলন ভালো হয়েছে। উন্নতমানের বীজ ও সেচ সুবিধা হলে আরো বেশি পরিমাণে হলে তরমুজ উৎপাদন বেশী হবে বলে কৃষকরা আশাবাদি। তবে যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে কম দামে তরমুজ বিক্রি করতে হচ্ছে কৃষকদের। 

জেলার তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের বিন্নাকুলির পূর্বে বুড়বুরিয়ার হাওরে  ৫০ একর অনাবাদি জমিতে এবার তরমুজের আবাদ হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ৪ হাজার মেট্রিকটন তরমুজ। যার বাজার মূল্য ২ কোটি টাকা। কৃষকরা জানান, আবওহয়া অনুকুলে থাকায়  গেল কয়েক বছরের তুলনায় এবার তরমুজের ফলন ভাল হয়েছে ও এবং দাম ও বেশী পাওয়া যাবে। এছাড়াও জেলার বিশ্বম্ভরপুর, জামালগঞ্জ উপজেলার বিস্তৃর্ণ জমিতে প্রতিবছর তরমুজ চাষ করা হয়। ফলন ভালো হলেও কৃষকদেরকে কম দামে পাইকারদের কাছে তরমুজ বিক্রি করতে হচ্ছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় বাধ্য হয়েই কম দামে তরমুজ বিক্রি করছে কৃষক। 

কৃষি অফিস ভালো বীজ সরবরাহ সেচ সুবিধা ও পরামর্শ  দিলে তরমুজের উৎপাদন দ্বিগুন হবে বলে জানান কৃষকরা । এতে বাড়বে তরমুজ আবাদের জমির পরিমাণও জানালেন কৃষকরা। জেলায় তরমুজের আবার বৃদ্ধিও লক্ষে বীজ ও সেচের ব্যবস্থা করবে এমনটাই প্রত্যাশা করছেন সুনামগঞ্জবাসী ।

এ ব্যাপারে জমির মালিক ও তাহিরপুর উপজেলার উত্তর বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ঠ আওয়ামীলীগ নেতা নিজাম উদ্দিন জানান,চলতি বছরের তরমুজ চাষে প্রায় ৫ শতাধিক শ্রমিক ৪ থেকে ৫ শত টাকা মুজুরীতে কাজ করছেন। তবে বীজের সমস্যাটা প্রকট, সময় মতো বীজ না পাওয়ার অভিযোগ। তবে সরকার যদি এ বিষয়ে দৃষ্টি দেন তাহলে এই অঞ্চলের মানুষ তরমুজ চাষ করে লাভবান  হবেন। প্রতি বিঘায় তরমুজ চাষ করতে ৩০ থেকে ৪০ হজার টাকার খরচ হয় এবং প্রতিবিঘার তরমুজ বিক্রি হবে দেড় থেকে দু’লাখ টাকায়।