Opu Hasnat

আজ ২৫ জানুয়ারী শনিবার ২০২০,

আনন্দিত ইসলামিক রিলিফের কর্মকর্তারা

ক্রেস্ট ও সম্মাননা পেয়েও কান্নায় ভেঙ্গে পড়লেন সারথি রাজবাড়ী

ক্রেস্ট ও সম্মাননা পেয়েও কান্নায় ভেঙ্গে পড়লেন সারথি

রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার পৌরসভা এলাকার বাসিন্দা সারথী রানী কুন্ড। নির্যাতনের বিভিষিকা মুছে ফেলে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বি এক নারী। এ বছর পাংশা উপজেলার শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচিত হয়েছেন। 

সোমবার সকালে আর্ন্তজাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের উদ্যোগে তার মতো আরো পাচটি পর্যায়ে পাচজন জয়িতার হাতে ক্রেস্ট ও সম্মানা তুলে দেওয়া হয়েছে। পাংশা উপজেলার জয়িতারা হলো, রাশিদা খাতুন, এ্যাডভোকেট খোদেজা নাসরিন, রোকেয়া পরভীন, মনোয়ারা খাতুন, ও সারথি রানী কুন্ড।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফরিদ হাসান ওদুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা এম.এ নাহার, জেলা পরিষদ সদস্য নুরুন্নাহার বেগম, প্যানেল মেয়র রাশিদা ইয়াছমিন প্রমুখ ।

পাংশা উপজেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে সম্মানা গ্রহন অনুষ্ঠানে নির্যাতনের বিভিষিকা মুছে ফেলে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বি হওয়া বিষয়ে সারথী রানী বলেন, জীবনযুদ্ধে স্বামীর মৃত্যর পর অভাব অনটনে দিন কাটছিলো তার। খেয়ে না খেয়ে জীবন পার করেছেন তিনি। মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে কোথাও কোন উপায় যখন নেই, ঠিক তখনই পাশে দাড়ায় ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ রাজবাড়ী কার্র্যালয়। সন্তানের পড়াশোনার দায়িত্ব নেন তারা। সন্তানের পড়াশোনার ব্যবস্থা হওয়ায় কিছুটা চিন্তিামুক্ত হয়ে একটি ছোট গরু দিয়ে শুরু করে খামার আজ তার খামারে রয়েছে আটটি গরু। করেছেন একটি বসবাসের মতো ঘর। এ সময় আনন্দে কেদে ফেলেন তিনি।

ইসলামিক রিলিফ রাজবাড়ী ফিল্ড অফিসের সহকারী প্রোগ্রাম অফিসার সুমি বিশ্বাস বলেন, আমরা রাজবাড়ীতে একেবারেই হতদরিদ্রদের নিয়ে কাজ করি। এদের পড়াশোনা ও চিকিৎসা সুবিধা দিয়ে থাকি। এ বছর রাজবাড়ী জেলায় আমাদের তিনজন ছাতের মা জয়িতা হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। এতে আমরা আনন্দিত।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় উপজেলা পরিশদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফরিদ হাসান ওদুদ বলেন, নারীর প্রতি সম্মান ও নারীর ক্ষমতায়নেই দেশ এগিয়ে যাবে। সেই কাজটি করছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজকে দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ন দায়িত্ব পালন করছেন নারীরা। তাই নারীদের কাজ করার সুযোগ করে দিতে হবে। ঘর থেকে নারীদের বাইরে বের করে নিয়ে আসতে হবে। নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করতে হবে।