Opu Hasnat

আজ ১১ ডিসেম্বর বুধবার ২০১৯,

ভাসমান পদ্ধতিতে শীতকালীন সবজি চাষে আলমগীরের সফলতা কৃষি সংবাদমাদারীপুর

ভাসমান পদ্ধতিতে শীতকালীন সবজি চাষে আলমগীরের সফলতা

বাজারে নিত্যৎপ্রয়োজনীয় সবজি হাতের নাগালে আনতে ও লোকসান থেকে বাঁচার আশায় মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার শিকার মঙ্গল এলাকার উত্তর শিকারমঙ্গল গ্রামের আলমগীর খান নামের এক কৃষক বাড়ির আঙ্গিনায় আগাম লতাজাতীয় শীতকালীন সবজি চাষ করেছেন। এ বছর বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় উঁচু জমিতে লাউসহ শীতকালীন বিভিন্ন জাতের সবজির চারা আগ্রহ নিয়ে রোপণ ও পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি এখন। অন্যান্য বছরের ন্যায় এবছর উপজেলায় আগাম শীতকালীন সবজি আরো আগে বিক্রি শুরু হয়েছে। এবং কি কৃষক আলমগীর খান ভাসমান বেডে পদ্ধতিতে শীতকালীন সবজি চাষ করে সফলও হয়েছেন। তিনি উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের পরামর্শ অনুযায়ী তার বাড়ির আঙ্গিনায় প্রায় এক বিঘা জমিতে লাউসহ বিভিন্ন প্রজাতির সবজি চাষ করেন। সে অনুযায়ী তিনি এ জাতীয় সবজি চাষ করে অধিক লাভবান হয়েছেন।

কৃষক আলমগীর খান জানান, কালকিনি উপজেলার সবজির কদর সারাদেশে সব সময়ই রয়েছে, তবে তা আগাম চাষে লাভ বেশি পাওয়া যায়। আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করলে কীটনাশক মুক্তভাবে সবজি চাষ করা সম্ভব। সেই পদ্ধতিই অনুসরণ করার চেষ্টা করছি। এতে করে সবজির গুণগতমান ভাল থাকে এবং বাজারে চাহিদাও বেশি থাকে বলে তিনি জানান। সবজির চারা রোপণের আগে জমি তৈরি করে কিছুদিন রাখা হয়। ফলে চারাগুলো রোগবালাই প্রতিরোধের ক্ষমতা সঞ্চয় করে এবং গাছগুলো সবল হয়। এ বছর বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কম হওয়ায় চারা নষ্ট হয়নি। ফলে উৎপাদন খরচ অন্যান্য বছরের চেয়ে অনেকটা কম  হবে বলে আশা করা যায়। তবে বুলবুলে কিছুটা ক্ষতি সাধন হয়েছে। মুলা বীজ ও লাউ বীজ রোপণ করেছেন। ক্ষেতের নমুনা দেখে ফলন আশানুরূপ হবে বলে আশা করছেন। তিনি বাজারে প্রতিনিয়ত লাউ, লালশাক, সিমসহ বিভিন্ন রকম সবজি বিক্রি করে যে টাকা আয় হয় তা দিয়ে পরিবারের মুখে হাসি ফুটাতে সক্ষম হয়েছে। 

এ ব্যাপারে কালকিনি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মিল্টন বিশ্বাস জানান, কৃষকরা যে ফসলে মুনাফা বেশি পায় সেই ফসলেই ঝুঁকে পড়েন। তাই কৃষকরা আগাম সবজি চাষে বেশি ঝুঁকেছেন। কৃষি বিভাগের লোকজনের নিয়মিত মনিটরিংয়ে আধুনিক পদ্ধতির ব্যবহার বেড়েছে। আর এই আধুনিক পদ্ধতিতে চাষাবাদের ফলে উৎপাদন বাড়ায় কৃষকের মুনাফাও বেড়েছে আগের থেকে অনেক বেশি।