Opu Hasnat

আজ ১৯ সেপ্টেম্বর শনিবার ২০২০,

চট্টগ্রামে হতদরিদ্র ৪১ হাজার পরিবারকে হেলথ কার্ড প্রদান করা হবে চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে হতদরিদ্র ৪১ হাজার পরিবারকে হেলথ কার্ড প্রদান করা হবে

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক)  উদ্যোগে “মেয়র হেলথ কেয়ার সার্ভিস” প্রকল্পের মাধ্যমে নগরীর সুবিধাবঞ্চিত হতদরিদ্র জনগোষ্ঠরি স্বাস্থ্য ও পুষ্টি উন্নয়নে ৪১ হাজার পরিবারকে হেলথ কার্ড প্রদান করা হবে। এই মেয়র হেলথ কার্ডধারীরা আগামী ১লা জানুয়ারী ২০২০ সাল হতে চসিক পরিচালিত সকল স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও মাতৃসদন হাসপাতাল সমূহে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা গ্রহন করতে পারবে। 

সিটি কর্পোরেশন কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় “মেয়র হেলথ কেয়ার সার্ভিস” সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন এসব কথা বলেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিক্ষা স্বাস্থ্য এবং পরিবার পরিকল্পনা স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো.সামসুদ্দোহা, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.সেলিম আকতার চৌধুরী। এতে আরো বক্তব্য রাখেন প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, কাউন্সিলর  হাসান মুরাদ বিপ্লব,জাহাঙ্গীর আলম, আবুল হাসেম, শফিউল আলম, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফারহানা জাবেদ, মেমন মাতৃসদন হাসপাতালের কনসালটেন্ট ডা.প্রীতি বড়ুয়া। এসময় সকল সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরবৃন্দ,মেয়রের একান্ত সচিব আবুল হাসেম,কনসার্ন ওয়াল্ড ওয়াইডের হেলথ এডভাইজার ডা.নাহিদ আহমেদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন। মূল উপস্থাপনায় ছিলেন কনসার্ন ওয়ার্ল্ড ওয়াইডের কনসোর্টিয়াম ম্যানেজার ইমরানুল হক। 

সভায় সিটি মেয়র আরো বলেন, চট্টগ্রাম দেশের ঘনবসতিপূর্ণ নগরগুলোর মধ্যে অন্যতম যেখানে নগরমূখী মানুষের সংখ্যা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। জনসংখ্যার অনিয়ন্ত্রিত প্রবাহ সামাজিক সুরক্ষা বলয়,স্বাস্থ্য,শিক্ষা, আবাসস্থল,পানি ও পয়ঃনিস্কাশনসহ মৌলিক সেবার উপর ক্রমাগত চাপ সৃষ্টি করছে। পাশাপাশি বিভিন্ন সেবা প্রদানকারী সংস্থার উপস্থিতি এবং সমম্বয়হীনতা স্বাস্থ্যসেবার সরবরাহ এবং চাহিদা বিবেচনায় অপর্যাপ্ত পরিলক্ষিত হয়। সুবিধাবঞ্চিত নগর জনগোষ্ঠী প্রকৃত স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এই প্রতিকূল পরিস্থিতিতে শহুরে জনগোষ্ঠী, বিশেষ করে দরিদ্র জনগোষ্ঠী নূন্যতম জীবনমান এবং গুণগত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে প্রচন্ড চাপের সম্মুখীন হচ্ছে। এই বাস্তবতায়  মেয়র হেলথ কার্ড প্রকল্পটি চসিক বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। নগরাঞ্চলে অতি দরিদ্রদের গুণগত ও মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ সৃষ্টির উদ্দেশ্যে একটি স্থিতিশীল এবং সমন্বিত জাতীয় স্বাস্থ্য পরিসেবা প্রদানের লক্ষ্যে প্রকল্পটি কাজ করবে। পাশাপাশি টেকসই ও স্থিতিশীল স্বাস্থ্যসেবা প্রবর্তনের মাধ্যমে সমন্বিতভাবে জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনায় চট্টগ্রাম নগরীর দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য এবং পুষ্টি অবস্থার উন্নয়ন করা মেয়র হেলথ কেয়ার প্রকল্পের সার্বিক উদ্দেশ্য। মেয়র বলেন গঠিত ওয়ার্ড স্বাস্থ্য কমিটি স্থানীয় পর্যায়ে সরকারী ও বেসরকারী স্বাস্থ্য সেবা প্রদানকারীদের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে সকলের জন্য স্বাস্থ্যসেবা প্রদানে অঙ্গীকারবদ্ধ যার মাধ্যমে হতদরিদ্র মানুষের স্বাস্থ্যসেবায় প্রবেশাধিকার  নিশ্চিত হবে।

তিনি বলেন, ওয়ার্ড স্বাস্থ্য কমিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য, পুষ্টি এবং পরিবার পরিকল্পনা কমিটির সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মসূচির পরিকল্পনা, বাস্তবায়ন এবং তত্ত্বাবধানে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। সভায় প্রতিটি ওয়ার্ডের হতদরিদ্র জনসংখ্যা ও আর্থিক মানদন্ডের উপর ভিত্তিকরে কোন ওয়ার্ডে কতজনের কার্ড দেওয়া যাবে তা তিন কর্ম দিবসের মধ্যে ওয়ার্ড ভিত্তিক সংখ্যা নির্ধারণ এবং ৩১শে ডিসেম্বরের মধ্যে মেয়র হেলথ কার্ড সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ সম্পাদন করার সিন্ধান্ত গৃহীত হয়।সভায় মেয়র যাদের জন্য এ হেলথ কার্ড করা হচ্ছে তারা যেন সঠিক ভাবে পায় তা নিশ্চিত করার জন্য কাউন্সিলরদের প্রতি আহবান জানান। অনুষ্ঠিত সভায় কাউন্সিলর, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর, চিকিৎসক,  কনসার্ন ওয়ার্ল্ড ওয়াইডের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।