Opu Hasnat

আজ ৮ ডিসেম্বর রবিবার ২০১৯,

রাজবাড়ীর জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রাজবাড়ী

রাজবাড়ীর জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

রাজবাড়ীর পদ্মা নদীর পানি কমার সাথে সাথে নাব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে। এরই মধ্যে নাব্যতা সংকট তীব্র আকার ধারন করেছে রাজবাড়ী জেলার চন্দনী ইউনিয়নের জৌকুড়া ও পাবনা জেলার নাজিরগঞ্জ নৌরুটে। যে কারনে গত বৃহস্পতিবার থেকে বন্ধ রাখা হয়েছে ঘাটটি। এই নৌরুট দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ ও কয়েকশত যানবাহন পারাপার করা হয়। ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পরেছে এই রুটের যাত্রীরা।

রাজবাড়ীর সড়ক ও জনপথ বিভাগের তথ্যমতে, জৌকুড়া নাজিরগঞ্জ নৌরুটে মাত্র দুটি ছোট ফেরি, দুটি লঞ্চ ও ১২ টি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার চলাচল করে। রাজবাড়ী, ফরিদপুর, পাবনা ও সিরাজগঞ্জ জেলার যোগাযোগের সহজ মাধ্যম এই নৌরুট।  

শুক্রবার সকালে সরেজমিনে জৌকুড়া ঘাট এলাকায় গিয়ে দেখাযায়, ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দুটি লক্কর ঝক্কর লঞ্চ দিয়ে ও ট্রলারে যাত্রীরা পারাপার হচ্ছে। তাও আবার লঞ্চ ছেড়ে যাওয়ার অপেক্ষায় বসে থাকতে হচ্ছে ঘন্টার পর ঘন্টা।

এ সময় পাবনা জেলার বাসিন্দা ও যাত্রী ওমর আলী শেখ বলেন, আমি একটি কাজে রাজবাড়ী এসেছিলাম। এখন আবার পাবনা ফিরে যাবো। জৌকুড়া ঘাটে এসে প্রায় এক ঘন্টা বসে আছি ট্রলারে যাত্রী পরিপূর্ন হলে ছারা হবে। যে কারনে বসে আছি। এখানে বসে থেকে সময় নষ্ট হচ্ছে। তাছারা পন্যবাহি ট্রাকগুলোকে রাজবাড়ী থেকে পাবনা থেকে হচ্ছে কুষ্টিয়া জেলা হয়ে। এতে অন্তত দুই কিলোমিটার পথ বেশি ঘুরে যেতে হচ্ছে। যে কারনে খরচ বেরে যাচ্ছে। 

জৌকুড়া নাজিরগঞ্জ নৌরুটের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স মোস্তাফিজুর রহমান শরিফের প্রতিনিধি মোঃ সোহেল রানা বলেন, পদ্মা নদীতে অস্বাভাবিক হারে পানি কমে যাওয়ায় নদীতে চর জেগেছে। যে কারণে রাজবাড়ীর জৌকুড়ার ফেরি ঘাট মেরামত ও পাবনার নাজিরগঞ্জের ঘাট স্থানান্তরসহ খনন কাজ করছে সড়ক বিভাগ। যে কারনে বন্ধ রয়েছে ফেরি চলাচল। 

নৌরুটের তত্ত্বাবধানে থাকা রাজবাড়ীর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী কেবিএম সাদ্দাম হোসেন জানান, পদ্মার পানি অস্বাভাবিক হারে কমে যাওয়ায় নদীতে চর জেগেছে। এ জন্য ফেরি চলাচল সমস্যা হচ্ছে। ফেরি চলাচল সাময়িক বন্ধ রেখে জৌকুড়া ঘাট মেরামতের কাজ করা হচ্ছে। যাত্রীদের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে আগামী ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত এ রুটে সাময়িক ভাবে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষনা করে গণবিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করা হয়েছে।