Opu Hasnat

আজ ১০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার ২০১৯,

স্ত্রীর মামলায় ঢাকা সিএমএম কোর্টের স্ট্যানো আমিনুল ঝালকাঠি কারাগারে ঝালকাঠি

স্ত্রীর মামলায় ঢাকা সিএমএম কোর্টের স্ট্যানো আমিনুল ঝালকাঠি কারাগারে

স্ত্রীর করা যৌতুক ও নারী নির্যাতন মামলায় ঢাকা সিএমএম কোর্টের স্ট্যানো মোঃ আমিনুল ইসলামকে কারাগারে পাঠিয়েছে ঝালকাঠির একটি আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক এইচএম ইমরানুর রহমান তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। ঝালকাঠির পূর্বচাঁদকাঠি এলাকার আঃ আজিজ হাওলাদারের কন্যা সাথী আক্তার বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। আমিনুল নলছিটি উপজেলার বিরাট গ্রামের মোঃ সোহরাব হোসেন’র পুত্র। আদালতে বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট মানিক আচার্য্য, অ্যাডভোকেট বনি আমিন বাকলাই, অ্যাডভোকেট কার্তিক দত্ত, অ্যাডভোকেট আলআমিন হোসেন হাওলাদার (৪)। আসামী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট তৈয়বুর রহমান তীরন্দাজ, ঢাকা বারের সদস্য মোঃ মোকছেদ আলী। 

মামলার এজাহার সূত্রে জানাগেছে, ২০১২ সালের ২ জানুয়ারী পারিবারিকভাবে ২লাখ টাকা দেনমোহরে বিবাহ সম্পন্ন হয়। উপঢৌকন হিসেবে ৩ লাখ মূল্যের গহনা ও ফার্নিচার (আসবাবপত্র) দেয়া হয়। পরে বাদীকে চাকুরী দেয়ার কথা বলে পিতার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা নেয়। দীর্ঘদিন (কয়েক বছর) অতিবাহিত হলে চাকুরী না দেয়ায় টাকা ফেরত চাইলে পারিবারিক মনোমালিন্য শুরু হয়। ইতিমধ্যে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। চাকরী দেয়ার কথা বলে নেয়া ৫লাখ টাকা ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আরো ৫লাখ টাকা পণ হিসেবে দাবী করে। এনিয়ে একপর্যায়ে অমানুষিক নির্যাতন করে পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেয়ায় সেখানে শিশু সন্তানকে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করে বাদী সাথী আক্তার। ২০১৮ সালের ২৯ নভেম্বর আদালতে যৌতুক নিরোধ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করে। মামলার পরে আইনজীবী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মাধ্যমে শালিস বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও তিনি (আমিনুল) তা অমান্য করে। বৃহস্পতিবার আদালতের ধার্য তারিখে হাজির হলে আদালত তার জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেয়।
 
মামলার আইনজীবী মানিক আচার্য্য জানান, আসামী আমিনুল একজন চতুর মানুষ। এঘটনায় আরেকবার জামিন বাতিল হইছিলো। তখন শালিস মিমাংসার শর্তে তাকে আদালত জামিন দিয়েছিলো। শালিস বৈঠকে বসলেও পরে তা অমান্য করে। বৃহস্পতিবার আদালত তার জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করে।