Opu Hasnat

আজ ১৪ ডিসেম্বর শনিবার ২০১৯,

ওয়ালটন জাতীয় ক্রিকেট লিগে চ্যাম্পিয়ন খুলনা খেলাধুলা

ওয়ালটন জাতীয় ক্রিকেট লিগে চ্যাম্পিয়ন খুলনা

ওয়ালটন ২১তম জাতীয় ক্রিকেট লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে খুলনা বিভাগ। শেষ রাউন্ডে ঢাকা বিভাগকে ৯ উইকেটে হারিয়ে শিরোপা পুনরুদ্ধার করেছে তারা।

মঙ্গলবার ম্যাচের চতুর্থ ও শেষ দিনে ১১৭ রানের ছোট লক্ষ্য খুলনা পেরিয়ে যায় ২৫.৪ ওভারেই। ৭৬ বলে অপরাজিত ৭৯ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন এনামুল হক বিজয়।

এক মৌসুম পর আবার শিরোপার স্বাদ পেল খুলনা। রাজশাহীকে পেছনে ফেলে জাতীয় লিগে সবচেয়ে বেশি শিরোপা জয়ের রেকর্ডটাও আবার নিজেদের করে নিয়েছে তারা।

এই নিয়ে সপ্তমবারের মতো দেশের সবচেয়ে বড় ঘরোয়া ক্রিকেট আসরের শিরোপা জিতল খুলনা।  ছয়বার জিতেছে রাজশাহী।

শেষ রাউন্ডে ড্র করলেই চলত খুলনার। তবে নাটকীয় শেষ দিনে ঢাকাকে হারিয়েই শিরোপা উৎসব করল তারা। চ্যাম্পিয়ন দলের হাতে ট্রফি তুলে দেন লিগের পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক উদয় হাকিম।

খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে আগের দিন ১০০ রানে পিছিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে নেমে ১০ রানেই ৪ উইকেট হারিয়েছিল ঢাকা। এরপর খুলনার বোলারদের সামনে দাঁড়িয়ে যান রকিবুল হাসান। ঢাকা দিন শেষ করেছিল ৫ উইকেটে ১০২ রান নিয়ে। রকিবুল ৩৯ ও আরাফাত সানী জুনিয়র ৯ রান নিয়ে শেষ দিন শুরু করেন।

এই দুজন একটু একটু করে এগিয়ে নিচ্ছিলেন ঢাকাকে। ১২৫ রানের জুটিতে দুজন দলের স্কোর পার করেছিলেন দুইশ। কিন্তু শুরুর মতো ঢাকার ইনিংসের শেষেও ধস নামে। মাত্র ৫ রানের মধ্যে হারায় শেষ ৪ উইকেট!

শুরুটা রকিবুলকে দিয়েই। ৯৯ রানে সিঙ্গেল নিতে গিয়ে রান আউটে কাটা পড়েন তিনি। ২২৭ বলে ৪ চার ও ৩ ছক্কায় সাজান ইনিংসটি। এরপর স্কোর ২১৬ রেখে ঢাকা হারায় শেষ ৩ উইকেট! সতীর্থের গায়ে হাত তুলে শেষ দুই দিনের জন্য বহিষ্কার হওয়ায় শাহাদাত হোসেন ব্যাটিংয়ে নামতে পারেননি। যার গায়ে তিনি হাত তুলেছিলেন, সেই আরাফাত করেন ৫৩ রান।

প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেট নেওয়া জিয়া এবার ৪৪ রানে নেন ৫ উইকেট। ৭৪ রানে ২ উইকেট নেন নাহিদুল ইসলাম। মইনুল ইসলাম নেন একটি উইকেট।

ছোট লক্ষ্য তাড়ায় প্রথম ওভারেই অবশ্য রবিউল ইসলাম রবিকে হারিয়েছিল খুলনা। তবে দ্বিতীয় উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ১১৪ রানের জুটিতে খুলনার জয় নিশ্চিত করেন বিজয় ও অমিত মজুমদার। বিজয় ৭৬ বলে ৪টি করে চার ও ছক্কায় ৭৯ ও অমিত ৩৩ রানে অপরাজিত ছিলেন।

প্রথম ইনিংসে অপরাজিত ১৫০ রানের জন্য ম্যাচ সেরা হয়েছেন আব্দুর রাজ্জাকের অনুপস্থিতিতে এই ম্যাচে খুলনাকে নেতৃত্ব দেওয়া নুরুল হাসান সোহান।

ছয় ম্যাচে তিনটি করে জয় ও ড্রয়ে ৩৯.৮১ পয়েন্ট নিয়ে লিগ শেষ করল খুলনা। একটি করে জয় ও হার এবং চারটি ড্রয়ে ২৪.৩৯ পয়েন্ট নিয়ে রানার্সআপ হয়েছে ঢাকা। শেষ রাউন্ডে গতবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহীকে হারিয়ে ২১.৪৬ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে রংপুর। প্রথম স্তর থেকে দ্বিতীয় স্তরে নেমে যাওয়া রাজশাহীর পয়েন্ট ১৮.৬৫।