Opu Hasnat

আজ ১২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ২০১৯,

গুজবে কান দেবেন না পর্যাপ্ত লবন মজুদ আছে : কুমিল্লার জেলা প্রশাসক কুমিল্লা

গুজবে কান দেবেন না পর্যাপ্ত লবন মজুদ আছে : কুমিল্লার জেলা প্রশাসক

কুমিল্লায় পর্যাপ্ত লবন মজুদ আছে। লবন নিয়ে গুজবে কান দিবেন না । যারা লবন নিয়ে গুজব সৃষ্টি করছে তাদেরকে কঠোর হস্তে দমন করা হবে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের এক জরুরি বৈঠকে জেলা প্রশাসক মো:আবুল ফজল মীর এসব কথা বলেন। 

তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি মন্ত্রনালয় থেকে জানানো হয়েছে আমাদের ১৬.০৫ টন চাহিদা থাকলেও এবার লবন উৎপাদন হয়েছে ১৮.২০ লাখ মেট্রিক টন। তাই লবণ নিয়ে অদূর ভবিষ্যতে কোন প্রকার সংকট সৃষ্টি হবে না।

সভায় কুমিল্লা জেলা পুলিশের পদোন্নতিপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) এর দায়িত্বে থাকা মো: আব্দুল্লাহ্ আল মামুন বলেন, লবন নিয়ে যেন কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠী নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে না পারে এ ব্যাপারে জেলা পুলিশের প্রত্যকটি সদস্য সক্রিয় অবস্থানে রয়েছে। এ পর্যন্ত পুলিশের অভিযানে ৮০ বস্তা লবন উদ্ধার করেছে পুলিশ সদস্যরা। এছাড়াও গুজব সৃষ্টিকারী কিংবা কোন ব্যক্তি -দোকানী কিংবা ব্যবসায়ী যদি লবন স্টক করে অধিক মুনাফা করতে চায় সেক্ষেত্রে পুলিশ বিশেষ ক্ষমতা আইনে ওই ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মামলা করতে পারবে এবং কুমিল্লা জেলা পুলিশের সদস্যরা সেরকম প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।

সভায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট পিন্টু ব্যাপারী জানান, কুমিল্লা জেলার ১৭ জন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, ১৬ জন সহকারী কর্মকর্তা (ভূমি) এবং ৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মিলে পুরো জেলার মোট ৪১ জনের টিম পুরো জেলায় অভিযান চালায়।

সভায় সিদ্ধান্ত হয় যে লবণের বিষয়ে গুজব প্রতিরোধে জেলা তথ্য অফিস থেকে মাইকিং করা হবে। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন  এনএসআইয়ের যুগ্ম পরিচালক  জি এম আলিম উদ্দীন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন কুমিল্লার সহকারী পরিচালক আছাদুল ইসলাম, চেম্বার অব কর্মাস এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ ইফতেখার খান, রানীর বাজার বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাহবুব মেহেদী।

উপস্থিত ছিলেন- র‌্যাব কুমিল্লা ১১ এর কমান্ডার মো: মুহিতুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো: আজিম উল আহসান, মেডিকেল অফিসার ডা: সৌমেন রায়, চেম্বার অব কমার্সের উপ-মহাব্যবস্থাপক হাসান আসিফ চৌধুরী, কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আনোয়ারুল হক, সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা আহসান কবীরসহ বিভিন্ন বাজার কমিটির নেতৃবৃন্দ।