Opu Hasnat

আজ ১৪ ডিসেম্বর শনিবার ২০১৯,

ফরিদপুরে ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতির উপর হামলা ফরিদপুর

ফরিদপুরে ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতির উপর হামলা

ফরিদপুর সদর উপজেলার ইশানগোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামলীগের ৬নং ওয়ার্ডের সভাপতি ত্যাগী আওয়ামীলীগ নেতা শম্ভু দাসের উপর হামলা চালানো হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে অত্র ইউনিয়নের লক্ষীদাসের হাটের উপর তার উপর এই হামলা চালানো হয়। এসময় তার শরীরের বিভিন্নস্থানে কাঠের বাটাম দিয়ে এলোপাথারি পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয় বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শিরা। পরে স্থানীয়রা দ্রুত তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে।

আহত শম্ভু দাস বলেন, আমি সকালে একটি সাইকেলে করে দুধ বিক্রি করতে আসি ওই বাজারে। এসময় সাইকেল রাখার সময় আমাজাদ নামে এক চা দোকানদার আমার উপর কাঠের বাটাম দিয়ে এলোপাথারি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। তিনি বলেন, অনেকদিন যাবত আমাকে আমজাদ, সেকেন মেম্বার, রোকন সেক টার্গের করে আসছিলো। কোন মতে সুযোগ পাচ্ছিলো না। সকালে কথাকাটির জের ধরে আমার উপর হামলা চালানো হয়। তিনি আরো বলেন, সেকেন মেম্বার আমার বাপ দাদার সম্পত্তি শত বছর ধরে আমাদের বসবাস। শত্রুতা করে এক লোককে নিয়ে এসে তার নামে ভুয়া ওয়ারিশ সার্টিফিকেট দিয়ে হয়রানি করছে। আমরা সংখ্যালুগু যাতে আমরা ওই এলাকায় না থাকতে পারি। আর এর কারনেই তারা ওই চা দোকানদার দিয়ে হামলা চালালো।

শম্ভু দাসের ছেলে রঞ্জন বলেন, আমার বাবা এক ত্যাগী আওয়ামীলীগ নেতা। এর আগে তিনি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন সময়ে গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন। বয়স হওয়ার কারনে বর্তমানে বাড়ীতে থাকেন। দুধ নিয়ে সকালে আমার বাবা বাজারে গেলে সেকেন মেম্বারসহ অন্যদের প্ররোচনায় এই হামলা করে ওই আমজাদ। তিনি বলেন পুরোটাই একটি ষড়যন্ত্র। সেকেন মেম্বার আমাদের জমির ভুয়া একটি ওয়ারিশ সার্টিফিকেট দেয়। এনিয়ে আমার বাবা তাকে বললে তিনি এতে তিনি রাগান্বিত হন। তিনি এমন কাজ টাকা নিয়ে ইউনিয়নে বিভিন্ন জনের সাথে করেছেন বলেও তিনি জানান। 

ফরিদপুর কোতয়ালী থানার উপপরিদর্শক মোঃ বেলাল হোসেন জানান, আমরা খবর পাওয়ার সাথে সাথে ওসি স্যারসহ পুলিশের লোকজন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।