Opu Hasnat

আজ ১৪ ডিসেম্বর শনিবার ২০১৯,

রাজবাড়ীতে পেয়াজের বাড়তি দাম পেতে বাড়তি যত্ন নিচ্ছেন কৃষক কৃষি সংবাদরাজবাড়ী

রাজবাড়ীতে পেয়াজের বাড়তি দাম পেতে বাড়তি যত্ন নিচ্ছেন কৃষক

টানা দুই সপ্তাহ আকাশচুম্বী দামে কেনাবেচার পর রাজবাড়ীর বাজারে কমতে শুরু করেছে পেয়াজের ঝাজ। এরই মধ্যে বাজারে উঠেছে নতুন মুড়িকাটা পেয়াজ। রবিবার সকালে রাজবাড়ীর বড় বাজারে নতুন পেয়াজ বিক্রি হয়েছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে, আর পুরাতন পেয়াজ বিক্রি হয়েছে ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা কেজি দরে। এদিকে পেয়াজের বাড়তি মুল্য দেখে বাড়তি যত্ন নিচ্ছেন রাজবাড়ীর কৃষকেরা। কৃষকেরা বলছেন, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পুরোপুরি বাজারে আসবে নতুন মুড়িকাটা পেয়াজ। নতুন পেয়াজ বাজারে আসলেই সহনীয় পর্র্যায়ে আসবে পেয়াজের দাম। 

রাজবাড়ী জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের তথ্যমতে, এ বছরও রাজবাড়ীর পাচটি উপজেলায় পেয়াজ চাষ হয়েছে ২৮ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে । সবচেয়ে বেশি আবাদ হয়েছে কালুখালী উপজেলায় এ থেকে ২ লক্ষ ৮১ হাজার ৮ শত মেট্রিক টন পেয়াজ উৎপাদিত হবে বলে আশা করছেন তারা।

রবিবার সকালে রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের হরিনবাড়িয়ার চরাঞ্চলে ঘুরে দেখাযায়, সেখানে মাঠের পর মাঠ মুড়িকাটা পেয়াজ আবাদ হয়েছে। প্রতিটি পেয়াজের ক্ষেতেই ব্যস্ত কৃষক। বাজারে পেয়াজের বাড়তি দাম তাই যাতে দ্রুত সময়ে পেয়াজ সংগ্রহ করা যায় সে জন্য বাড়তি যত্ন নিতে ব্যস্ত তারা।

এ সময় কৃষক হারুন মোল্লা বলেন, এক বিঘা (৩৩ শতাংশ) জমিতে পেয়াজ রোপন করতে সব মিলিয়ে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা খরচ হয়। গত বছর পেয়াজ তোলার সময় বৃষ্টির কারনে পেয়াজ পচে গেছে। গত বছর পেয়াজ চাষ করে আমার আড়াই লক্ষ টাকা লোকসান হয়েছে। ঢাকার শ্যাম বাজারে পেয়াজ নিয়ে বিক্রি করতে হয়েছে ৮ থেকে ১০ টাকা কেজি দরে। আমরা যেই ট্রাকে করে পেয়াজ নিয়েছি তার ভারা দেওয়াই কষ্ট হয়েছে। এ বছর পেয়াজের বাজার ভালো, এই বাজার একইভাবে থাকলে কৃষক লাভের মুখ দেখবে।

অপর কৃষক হাচেন জমাদ্দার বলেন, হারভাঙ্গা পরিশ্রম করে কৃষক। বর্তমানে সার, পেয়াজ বীজ ও শ্রমিকের যে মূল্য এতে অনেক খরচ হয়। আল্লাহ ছারা কৃষকের দিকে কেউ তাকায় না। এতকাল পেয়াজে লোকসান হয়েছে তখন তো আপনারা আমাদের খোজ নেন নি ? এই পেয়াজ বিক্রি করে কৃষক তাদের গত বছরের দেনা পরিশোধ করবে। 

কৃষক আরজু মনি বলেন, মুড়িকাটা পেয়াজ রোপনের পর ৪৫ দিনের মধ্যে তোলার সময় হয়। এখন বাড়তি দাম পেতে অনেকেই পেয়াজ তোলা শুরু করেছে। আবার অনেকে অতিরিক্ত যত্ন নিচ্ছেন। অনেকে পানি ও সার প্রয়োগ করছেন। তবে এক সপ্তাহ বা দশ দিনের মধ্যেই পুরোপুরিভাবে মুড়িকাটা পেয়াজ তোলা সম্ভব হবে। এই মুড়িকাটা পেয়াজ বাজারে আসলে আর সংকট থাকবে না। 

এদিকে রবিবার দুপুরে রাজবাড়ীর পেয়াজের হাটে গিয়ে দেখাযায় বাজারে নতুন পেয়াজ আসতে শুরু করেছে। তবে তার পরিমানটা কম। নতুন পেয়াজ বাজারে আসায় পুরাতন পেয়াজও দাম কমেছে। 

এ সময় পেয়াজ ব্যাবসায়ী মাসুদ রানা বলেন, রাজবাড়ী জেলায় যে পেয়াজ উৎপন্ন হয় তা আশেপাশের জেলার চাহিদা পুরন করে ঢাকায় পাঠানো হয়। রাজবাড়ী বাজারে নতুন পেয়াজ আসতে শুরু করেছে যে কারনে দামও কমেছে। তবে এক সপ্তাহের মধ্যে পেয়াজের দাম ৭০ থেকে ৮০ টাকায় নেমে আসবে বলে দাবী করেন তিনি।

রাজবাড়ীর বাজারে পেয়াজ বিক্রি করতে আসা কৃষক মাসুদ রানা বলেন, বর্তমানে বাজারে যে দাম আছে তাতেও কৃষক লাভবান। পেয়াজের মন যদি তিন হাজার টাকা থাকে তাও কৃষক লাভবান হবে। এর চেয়ে কমে গেলে লোকসানে পরবে কৃষক। সেই সাথে বিদেশ থেকে পেয়াজ আমদানি বন্ধ রাখার দাবী জানান তিনি।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ বাহাউদ্দিন সেক বলেন, রাজবাড়ী জেলায় প্রতি বছর পেয়াজের বাম্পার ফলন হয়ে থাকে। সারাদেশে শতকরা ১৩ ভাগ পেয়াজ রাজবাড়ী থেকে যোগান দেওয়া হয়। পেয়াজ চাষে কৃষকদের প্রনোদনা ও প্রদর্শনী দেওয়া হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে উপ-সহকারী কর্মকর্তারা সব সময় পরামর্শ প্রদান করে আসছে। এছারাও পেয়াজের দুটি জাত রয়েছে এর মধ্যে তাহেরপুরি ও কিং পেয়াজ। কিং জাতের পেয়াজ ফলন বেশি হওয়ায় এর চাষও বেশি হয়। এ বছর রাজবাড়ীতে পেয়াজের ভালো ফলন হয়েছে পাশাপাশি পেয়াজের বাড়তি দামে লাভবান হবেন কৃষক।