Opu Hasnat

আজ ১৪ ডিসেম্বর শনিবার ২০১৯,

উন্নয়নের গান গেয়ে সংসার চালাচ্ছেন বয়াতী আব্দুল মজিদ খুলনা

উন্নয়নের গান গেয়ে সংসার চালাচ্ছেন বয়াতী আব্দুল মজিদ

ধন্য ধন্য বঙ্গবন্ধুর কন্যারে তুমি ধন্য ধন্য শেখ মুজিবের কন্যা, সোনার বাংলা গড়তে তোমার নাই কোনো তুলনা, জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল সোনার বাংলা গড়া, ক্ষুধার জালায় কোনো মানুষ যায় না যেন মারা, সেই স্বপ্ন ভেঙ্গে দিল ঘাতকের দল, বলতে গেলে সেই কাহিনী চোখে আসে জল, তিনার কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা, পিতার স্বপ্ন পুরন করবো দেরি করবো না”। সরকারের উন্নয়ন ও সাফল্য নিয়ে রচিত উন্নয়নের এ জারীগান গেয়ে সংসার চালাচ্ছেন খুলনার পাইকগাছার জনপ্রিয় বয়াতী আব্দুল মজিদ ও তার দল। মজিদ বয়াতী উন্নয়নের এ জারীগানের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ ১০টি উদ্যোগ সহ সকল ক্ষেত্রে সরকারের উন্নয়ন ও সাফল্য গানে গানে তুলে ধরেছেন মানুষের কাছে। এমন কোনো বিষয় নেই যা তিনি গানের মধ্যে আনেন নাই। এর মাধ্যমে বয়াতী মজিদ একদিকে যেমন বর্তমান সরকারের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ড জারী গানের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন, তেমনি দেশ থেকে যখন গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী জারীগান হারিয়ে যেতে বসেছে বয়াতী মজিদ তা ধরে রাখার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। 

জারীগান গেয়ে বয়াতী মজিদ ও তার দল যে সম্মানী পান তা দিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে জীবন যাপন করা কঠিন হয়ে পড়েছে। বয়াতী আব্দুল মজিদ বর্তমানে খুলনা বিভাগীয় তথ্য অফিসের মাধ্যমে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় জারীগান পরিবেশন করার মাধ্যমে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছে। 

উল্লেখ্য, বয়াতী আব্দুল মজিদ ১৯৬৬ সালের ২মে পাইকগাছা পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের গোপালপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মৃত কোনাই গোলদার। অভাব অনটনের সংসারে মজিদ বেশি দ‚র লেখাপড়া করতে পারেনি। সাতক্ষীরা জেলার কাকডাঙ্গা মাদ্রাসায় ১০ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৮০ সালে চারণ কবি মোসলেম উদ্দীন বয়াতীর জারীগান শুনে এর প্রতি মজিদ আগ্রহী হয়ে ওঠে। এরপরে তিনি উপজেলার তোকিয়া গ্রামের প্রয়াত চারণ কবি ওস্তাদ আব্দুল জব্বার বয়াতীর নিকট জারীগান শিক্ষা গ্রহণ করেন। এরপর আর মজিদ বয়াতীকে পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। তার গান এলাকায় ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। বাংলা একাডেমীর বৈশাখী মেলা ও শিল্পকলা একাডেমীতে সার্ক অনুষ্ঠানে জারীগান পরিবেশন করে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেন। তিনি জারীগানের মাধ্যমে ১৯৯৬ সালের জানুয়ারী থেকে আজ পর্যন্ত বিভাগীয় জেলা তথ্য অফিসে প্রথম ইউএনএফপিএ (জাতি সংঘ শিশু তহবিল), আদমশুমারী গৃহ গণনা, সংসদ নির্বাচন, উপজেলা নির্বাচন, বিভিন্ন সন্ত্রাস বিরোধী, বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের জারী, খুলনা বিভাগের খুলনা জেলার অনলাইন চ্যানেল জয় টিভির মাধ্যমে। বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুস্পুত্র শেখ সালাউদ্দীন জুয়েল ভাইয়ের নির্বাচনী প্রচারণায় খুলনা দুই আসনে নির্বাচনী গান প্রচার করি, পরিচালনায় বঙ্গবন্ধু ট্রাস্ট-এর চেয়ারম্যান ক্যাপ্টেন শওকত হোসেন, ইপিআই, পরিবার পরিকল্পনা, প্রজনন স্বাস্থ্য, নারী বৈষম্য, নারী অধিকার, নারীর ক্ষমতায়ন, নিরাপদ মাতৃত্ব সহ নানা বিষয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করে আসছেন। মজিদ জারীগান গেয়ে ইতোমধ্যে অনেক সম্মাননা ও পুরস্কার লাভ করেছেন। ১৯৯৬ সালে তৎকালীন তত্তাবধায়ক সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য নির্বাচনী গান গেয়ে জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে পুরস্কার পান। এ সময় তিনি বিভাগীয় তথ্য অফিসের নজরে আসেন এবং সেই থেকে বিভাগীয় তথ্য অফিসের মাধ্যমে বিভিন্ন জেলা উপজেলায় মজিদ বয়াতী ও তার দল জারীগান পরিবেশন করে আসছেন। কিন্তু এর মাধ্যমে যে সম্মানী পান তাতে পরিবার পরিজন নিয়ে সুন্দর জীবন যাপন করা কঠিন হয়ে পড়েছে। দীর্ঘ ২৩ বছরে তার ও তার দলের চাকুরী স্থায়ী হয়নি। মজিদ বয়াতীর দাবী তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সরকারি ভাবে তার এবং তার দলের সদস্যকে বেতন ভাতা প্রদান করা হোক। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা কামনা করেছেন বয়াতী মজিদ ও তার দল।