Opu Hasnat

আজ ১৬ নভেম্বর শনিবার ২০১৯,

মোরেলগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিক ভবন নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ বাগেরহাট

মোরেলগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিক ভবন নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলায় চলমান কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মানে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বাগেরহাট-৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ডাঃ মোজাম্মেল হোসেন নির্মান কাজে অনিয়ম ও নিম্নমানের আসবাবপত্র সরবরাহের অভিযোগে ডিও লেটার প্রদান করেছেন। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য কমিউনিটি বেইজড হেলথ কেয়ারের লাইন ডাইরেক্টরের কাছে তিনি এ ডিও লেটার প্রদান করে ।

জানা গেছে, ২০১৮ সালে অত্র  উপজেলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে ১৪টি কমিউনিটি ক্লিনিকের নতুন ভবনের কাজ শুরু হয়। এর মধ্যে তেলাগাতি ইউনিয়নে ২, দৈবজ্ঞহাটী ১, চিংড়াখালী ১, বহরবুনিয়া ২, নিশানবাড়িয়া ৪, মোরেলগঞ্জ ১, খাউলিয়া ১ ও বারইখালী ২ টি সহ ১৪টি এ কমিউনিটি ক্লিনিকের নির্মান কাজ শেষের পর্যায়ে  হলেও এখনো হস্তান্তর হয়নি । প্রতিটি ভবন নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা। 

কমিউিনিটি ক্লিনিকের কোনটার কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। আবার কোনাটি কাজ শেষের পর্যায়ে। এসব নিমাণার্ধীন কমিউিনিটি ক্লিনিকের কাজের নানাবিধ ত্রুটি ও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে মাঠ পর্যায়ে। অনিয়মের কারনে ক্ষোভ রয়েছে  সংসদ সদস্য, ইউপি চেয়ারম্যান, সিএইচসিপি সহ স্থানীয়দের । এ কাজে উপজেলা প্রশাসনের কোন সংশ্লিষ্টতাও রাখা হয়নি। নেই কোন উর্ধতন কর্তৃপক্ষের তদারকি।

সরেজমিনে দেখা গেছে, দৈবজ্ঞহাটী ইউনিয়নের পোলেরহাট কমিউনিটি ক্লিনিকের নতুন ভবনটির কাজ শুরু হয় ২০১৮ সালের ১৬ জুলাই। এ ভবনটি হস্তান্তরের পূর্বেই ভবনের বাহির অংশে ফ্লোর (এপ্রোল) অংশে দেখা দিয়েছে ফাটল। ক্লিনিকের সিএইচ সিপি মো. এমদাদুল হক, জমিদাতার ছেলে খবির মোল্লা, কমিউনিটি গ্রুপের সভাপতি ইউপি সদস্য মো. হায়দার আলী বেগ, সদস্য কামরুল ইসলাম হাওলাদার ক্ষোভের সাথে বলেন, বর্তমান সরকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রামীন স্বাস্থ্য সেবা জনগনের দ্বারপ্রান্তে পৌছে দিতে এ কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করছেন। কাজের শুরুতেই অনিয়মের বিষয়গুলো দেখার ক্ষেত্রে তাদের কোন কথারই কর্ণপাত করেনি ঠিকাদাররা। নিম্নমানের টাইস, সেফটি ট্যাংকি, সিডিউল ছাড়াই ফ্লোরের মাটি দিয়ে উচ্চতা বাড়ানো, জানালার গ্রীলে রং না করাসহ নানাবিধ অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয়রা। 

একইভাবে নিশানবাড়িয়ার বাদশারহাট কমিউনিটি ক্লিনিক,  তেলীগাতির চোমরা, খাউলিয়ার আমতলী, বহরবুনিয়া কমিউনিটি ক্লিনিকের নতুন ভবনের কাজগুলোর ক্ষেত্রেও নিম্নমানের কাজ করার অভিযোগ তুলে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান মোর্শেদা আক্তার, আব্দুর রহিম বাচ্চু, আবুল খায়ের ও রিপন তালুকদার । তারা জানান, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নিয়মনীতি ছাড়াই নিজেদের ইচ্ছামাফিক কাজ করছেন। ইতোপূর্বে অনিয়মের বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের অবহিত করেছেন তারা। 

উপজেলা স্বাস্থ্য  কমপ্লেক্সের ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কামাল হোসেন মুফতি জানান, ক্লিনিকের নতুন ভবনের কাজ তদারকীর জন্য একজন মেডিকেল অফিসার সহ হেলথ ইনেসপেক্টর এমপিপিআই ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি মাঠ পর্যায়ে রয়েছে। তিনি নিম্নমানের কাজের সত্যতা স্বীকার করে করেছেন।  বিষয়টি জেলা সিভিল সার্জনকে অবহিত করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. কামরুজ্জামান বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকের নতুন ভবন নির্মাণে অনিয়মের বিষয়গুলো ইতোপূর্বে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে অবিহিত করেছেন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এ ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করেনি। 
 
বাগেরহাট জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী এনামুল হক জানান, কমিউনিটি ক্লিনিকের ১৪টি নির্মাণাধীন ভবনের কাজের ক্ষেত্রে কোন অনিয়ম হয়নি। কয়েকজন চেয়ারম্যান ত্রুটির কথা বললে তাৎক্ষনিক সেগুলোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। নতুন ভবনের ফাটলের অভিযোগ সঠিক নয়। উপজেলা প্রশাসনের তদারকীর কোন বিষয় নেই। সিডিউল ও  নকশা অনুযায়ী কাজ হয়েছে। 

এই বিভাগের অন্যান্য খবর