Opu Hasnat

আজ ১৮ নভেম্বর সোমবার ২০১৯,

আমিরাতে ‘ব্যাচ-০২’ বন্ধুদের মিলনমেলা ও ফুটবল ম্যাচ খেলাধুলাপ্রবাস

আমিরাতে ‘ব্যাচ-০২’ বন্ধুদের মিলনমেলা ও ফুটবল ম্যাচ

সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) গ্রীনসিটি আল আইনের ইউনিভার্সেল ফুটবল গ্রাউন্ডে ‘এসএসসি ব্যাচ-০২’র প্রবাসী বন্ধুদের মিলনমেলা ও একটি প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

৩১ অক্টোবর “সৃষ্টির আনন্দে বন্ধুত্বের বন্ধনে, এসো মিলি সৃষ্টি-সুখের উল্লাসে” এই মূলমন্ত্রকে ধারণ একত্রিত হয় ‘এসএসসি-২০০২ ব্যাচ বাংলাদেশ’র প্রবাসী বন্ধুরা। মিলনমেলায় ওই ব্যাচের বন্ধুরা দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে একটি মনোমুগ্ধকর ফুটবল প্রীতি ম্যাচে অংশ নেয়।

জানা গেছে, মিলনমেলার মূল উদ্দেশ্য ছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা গ্রুপের সদস্যদরা একত্রিত হয়ে কিছু সময়ের জন্য আনন্দ-উল্লাসে মেতে উঠা। মূল আকর্ষণ ছিল ফুটবল ম্যাচ ও বন্ধুদের রাতভর আড্ডা।
 
অনুষ্ঠানটির সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন ‘এসএসসি-২০০২ ব্যাচ বাংলাদেশ’ গ্রুপের সদস্য ইমরান হক এবং সহযোগী হিসেবে ছিলেন গ্রুপের সদস্য আরিফ রহমান ও ইকবাল হোসেন।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত ‘এসএসসি-২০০২ ব্যাচ বাংলাদেশ’র শাহজালাল সিকদার ও মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের উদ্যোগে সব বন্ধুরা কিছু সময়ের জন্য কর্মজীবনের ব্যস্ততাকে ভুলে মেতে উঠেছিল আনন্দ উল্লাসে।

আমিরাতের দূর-দূরান্ত থেকে আসা বন্ধুদের থাকার জন্য ছিল পাঁচ তারকা মানের হোটেল রেডিসন ব্লুতে সুসজ্জিত রুম। ‘এসএসসি-২০০২ ব্যাচ বাংলাদেশ’র মিলনমেলাকে আরও রঙিন করে রাখতে আয়োজন করা হয় একটি প্রীতি ফুটবল ম্যাচের। ফুটবলে লাল দল এবং সবুজ দলের ম্যাচটি ট্রাইবেকার পর্যন্ত গড়ায়।

প্রথমার্ধে গোলশূন্য ড্র ম্যাচটি দ্বিতীয়ার্ধে কোনও পক্ষ গোলের দেখা পায়নি। রেফারির সিদ্ধান্তে অতিরিক্ত ৩০ মিনিট মাঠে গড়ায় খেলা। তাতেও গোলশূন্য ম্যাচ। পরে ট্রাইবেকারের মধ্যদিয়ে লাল দল বিজয়ী হয়। পুরো খেলায় ধারাভাষ্য দিয়েছেন গ্রুপের সদস্য আকবর হোসেন।

সেদিনের মিলনমেলায় গ্রুপের সদস্য সৈয়দ পল্লবের বিবাহবার্ষিকী উপলক্ষে কেক কেটে সারপ্রাইজ দেন বন্ধুরা। বর্ণিল নানা আয়োজনের মাধ্যমে রাতভর চলে বন্ধুদের আড্ডা-মাস্তি। ঠিক যেন কৈশোরে ফিরে যাওয়া প্রাণান্তর চেষ্টা।

‘এসএসসি-২০০২ ব্যাচ বাংলাদেশ’ মূলত একটি ফেসবুকভিত্তিক গ্রুপ। এই ব্যাচের আমিরাতের প্রবাসী বন্ধুরা একটি বর্নিল দিন নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে উপভোগ করল।

গ্রুপের এডমিন মাহমুদ হাসান সুমন জানান, ২০০২ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের এক ছাদের নিচে নিয়ে আসায় আমাদের মূল উদ্দেশ্য। ধর্ম, বর্ণ, গোত্র বৈষম্য ভুলে বন্ধুত্বের বন্ধন আরও শক্ত করা। একে অন্যের বিপদে আপদে সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া।

তিনি জানান, আমরা একা চাইলে সম্ভব না কিন্তু যখন একত্রিত হব সবই সম্ভব হবে। সমবয়সী বন্ধুরা মিলে আড্ডা-মাস্তির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে আর্ত-মানবতার সেবায় নিজেদের নিয়োজিত রাখতে চাই আমরা। পরিবারের সদস্যদের মতো সুখে-দুঃখে পারষ্পরিক সহযোগিতাই আমাদের মূল লক্ষ্য।