Opu Hasnat

আজ ২১ অক্টোবর রবিবার ২০১৮,

দিনাজপুরে কৃষকরা প্রতারণার শিকার

ভূয়া কোম্পানীর মোড়কে নিম্নমানের বীজ, তদারিকের দায়িত্ব কার? কৃষি সংবাদদিনাজপুর

ভূয়া কোম্পানীর মোড়কে নিম্নমানের বীজ, তদারিকের দায়িত্ব কার?

দিনাজপুর শহরসহ বিভিন্ন স্থানে হাট-বাজারে ফসলের বীজ কিনে প্রতারিত হচ্ছে ফসল উৎপাদনকারী কৃষকরা। নামী দামী কোম্পানীর মোড়কে প্যাকেট করা বীজ উচ্চ মূল্যে কিনলেও তাতে ফসল চারা গঁজাচ্ছে না। আর যদিও বা গঁজায় তা হয় শতকরা ১০/১৫ ভাগ। তবে কৃষি বিভাগ ও জেলা প্রশাসনের উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন বিজ্ঞ জনেরা। 

দিনাজপুর পৌরসভার মোড়ে বেশ কিছু ফসলের বীজের দোকান রয়েছে। সেখানে খুচরা ও পাইকারী বীজ বিক্রয় করা হয়। মূলতঃ এই দোকানগুলি ভেজাল ও নিম্নমানের বীজ বিক্রেতা বা সরবরাহকারী। তারা এখানে বসে নামী দামী বীজ কোম্পানীর নামে প্যাকেট ছাপিয়ে প্যাকেট জাত করে নিম্নমানের বীজ। দৃষ্টিনন্দন ও আকর্ষণীয় প্যাকেটে কোম্পানীর নাম ঠিকানা আর ফোন নম্বর লেখা থাকে। যার কোন অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না। ঢাকা ও সৈয়দপুর থেকে এই ফয়েল প্যাকেটগুলো অর্ডার দিয়ে প্রিন্ট করে আনা হয়। পরে ঐ প্যাকেটে বীজ ভরে পেস্টিং মেশিন দিয়ে মুখ আটকে দেওয়া হয়। এই বীজগুলোই পাইকারী কিনে নিয়ে ব্যবসায়ীরা দিনাজপুরের বিভিন্ন উপজেলার গ্রামে-গঞ্জে, হাট-বাজারে বিক্রি করে। ফলে প্রতারণার শিকার হয় সহজ-সরল প্রান্তিক কৃষকরা। 

দিনাজপুর সদর উপজেলার উথরাইল ইউনিয়নের নুনসাহার গ্রামের চায়ের দোকানদার মুন্সি আব্দুল কাদের জানান, তিনি পৌরসভা মোড়ের একটি দোকান থেকে লাউ, বরবটি, শিম ও পালং শাক সহ বেশ কিছু শাকসবজির বীজ ক্রয় করে জমিতে রোপন করে। কিন্তু সেই বীজে ২০% শতাংশেরও কম চারা গজায়। আর ১০ মাইল মোড়ের হোটেল কর্মচারী আব্দুল কুদ্দুস জানায়, যে তার একটিও ঢেঢ়স এর চারা জন্মায়নি। যদিও তিনি ৩৫ টাকা দিয়ে ১ প্যাকেট নামী দামী কোম্পানির বীজ ক্রয় করেন ঐ মার্কেট থেকে। 

কৃষি প্রধান জেলা দিনাজপুরের প্রতিটি উপজেলায় প্রতিটি গ্রাম-গঞ্জে এসব বীজ বিক্রয় হলেও কেউ কোন দিন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। কোন সরকারী তদারকি না থাকায় দিনাজপুর পৌরসভা মোড়ে বীজ ব্যবসায়ীরা নির্বিঘেœ প্রতারনার মাধ্যমে বীজ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি কৃষি বিভাগসহ প্রশাসনের আশু দৃষ্টি কামনা করছেন ভ‚ক্তভোগী কৃষকরা।