Opu Hasnat

আজ ২১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ২০১৯,

কোয়ালকম প্রসেসর চালিত ডুয়েল মোড ফাইভজি স্মার্টফোন আনছে অপো তথ্য ও প্রযুক্তি

কোয়ালকম প্রসেসর চালিত ডুয়েল মোড ফাইভজি স্মার্টফোন আনছে অপো

ডুয়েল মোড ফাইভজি স্মার্টফোন বাজারে আনার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় স্মার্ট ডিভাইস ব্র্যান্ড অপো। চলতি বছরের শেষের দিকে স্মার্টফোনটি আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মোচন করা হবে। বার্সেলোনায় অনুষ্ঠিত কোয়ালকম ফাইভজি সামিটে এ ঘোষণা দিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান ফাইভজি সায়েন্টিস্ট হেনরি ট্যাং। স্মার্টফোনটিতে থাকবে কোয়ালকমের ডুয়েল মোড ফাইভজি প্ল্যাটফর্ম যা একইসাথে স্ট্যান্ডঅ্যালোন (এসএ) এবং নন-স্ট্যান্ডঅ্যালোন (এনএসএ) নেটওয়ার্ক সমর্থন করবে। 

সম্মেলনে ফাইভজির বর্তমান অবস্থা এবং ভবিষ্যৎ পণ্য ও অ্যাপ্লিকেশনের পাশাপাশি নতুন প্রজন্মের এ নেটওয়ার্ক আর কী কী অত্যাধুনিক সুবিধা দেবে ব্যবহারকারীদের, তা তুলে ধরেছেন হেনরি ট্যাং। তিনি বলেন, “অপো এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের নিরলস প্রচেষ্টার ফলে ফাইভজি প্রযুক্তির দ্রুত ব্যবহার বৃদ্ধির পথ সুগম হয়েছে। নির্দিষ্ট কয়েকটি দেশ এবং অঞ্চলের ফাইভজি ব্যবহারকারীরা এরই মধ্যে অপোর ফাইভজি স্মার্টফোন ব্যবহার করতে শুরু করেছে।” অপোর নতুন এই ডুয়েল মোড ফাইভজি স্মার্টফোন বিশ্বব্যাপী ব্যবহারকারীদের আরও দারুণ অভিজ্ঞতা প্রদান করবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি। 

এ বছরের মে মাসে অপো সুইজারল্যান্ডের শীর্ষস্থানীয় টেলিকম সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সুইসকমের সাথে অংশিদারিত্বের ভিত্তিতে দেশটির বাজারে রেনো ৫জি স্মার্টফোন উন্মুক্ত করেছে। বাণিজ্যিকভাবে ইউরোপের বাজারে আনা এটিই প্রথম ফাইভজি স্মার্টফোন। বিশ্বব্যাপী ফাইভজির ব্যবহার ত্বরান্বিত করতে বর্তমানে বেশ কিছু মোবাইল অপারেটরের সাথে অপো সক্রিয়ভাবে কাজ করছে। এরই ধারাবাহিকতায় সামনের দিনগুলোতে আরও কিছু ফাইভজি ডিভাইস নিয়ে আসবে অপো।

ফাইভজি প্রযুক্তির উন্নয়নে নেতৃস্থানীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে অপো এরই মধ্যে মান নির্ধারণ, সফটওয়্যার উন্নয়ন এবং অন্যান্য প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে বিশেষ অবস্থান তৈরি করেছে। 

অপোর ফাইভজি আরঅ্যান্ডডি দলের সদস্যরা নিয়মিতভাবেই নতুন প্রজন্মের মানদন্ড নির্ধারণে সক্রিয় ভ‚মিকা রেখে চলেছে। এ বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ইউরোপিয়ান টেলিকমিনিকেশন্স স্ট্যান্ডার্ড ইনস্টিটিউটে (ইটিএসএ) ফাইভজি সংক্রান্ত ২,৫০০’র বেশি প্যাটেন্ট আবেদন জমা দিয়েছে অপো। এছাড়া ঘোষণা করেছে এক হাজারের বেশি প্যাটেন্ট। এর বাইরে থার্ড জেনারেশন পার্টনারশিপ প্রজেক্টে (থ্রিজিপিপি) অপো জমা দিয়েছে তিন হাজারের বেশি ফাইভজি স্ট্যান্ডার্ড সংক্রান্ত ডকুমেন্ট।

অপো:
বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড অপো এর ক্রেতাদের শিল্প ও উদ্ভাবনী প্রযুক্তির মিশেলে তৈরি পণ্য সরবরাহের জন্যে একটি নিবেদিত প্রতিষ্ঠান। তারুণ্য, নুুন ট্রেন্ড/প্রবণতা সৃষ্টি আর সৌন্দর্যের প্রতীক একটি ব্র্যান্ড হিসেবে ডিজিটাল জীবনযাত্রার আরো অসাধারণ অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করতে অপো বরাবরই তার গ্রাহকদের জন্যে নিয়ে আসে সর্বোত্তম সেবা দিতে সক্ষম ইন্টারনেট অপটিমাইজড প্রোডাক্ট। এই ব্র্যান্ডের হাত ধরেই সূচনা হয় ‘সেলফি বিউটিফিকেশন’ এর এক নুুন যুগ। স্মার্টফোন জগতে নিজেদের এক ভিন্ন ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠায় ‘অপো’ নিয়ে এসেছে ‘মোটোরাইজড রোটেটিং’ ক্যামেরা, আল্ট্রা এইচডি ফিচার, ৫এক্স ডুয়াল ক্যামেরা জুম প্রযুক্তি। ২০১৬ সালে ‘অপো’র সেলফি-বিশেষজ্ঞ খ্যাত ‘এফ’ সিরিজ বাজারে আসার পরপরই স্মার্টফোন জগতে সেলফি তোলার প্রবণতা সৃষ্টিতে অগ্রগ্রামী ভ‚মিকা রাখে অপো। ২০১৭ সালে আইডিসি এর র‌্যাংকিং অনুসারে অপো বিশ্বের চতুর্থ সেরা স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হিসেবে নির্বাচিত হয়। বর্তমানে ৪০টি দেশে ২০ কোটির অধিক গ্রাহক আর ৪,০০,০০০ এর অধিক স্টোর আর বিশ্বজুড়ে ৪টি রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টারের মিশেলে বিশ্বজুড়েই তরুণদেরকে স্মার্টফোন ফটোগ্রাফিতে সর্বোৎকৃষ্ট অভিজ্ঞতা দিয়ে চলেছে অপো। ২০১৮ সালে ‘ফাইন্ড এক্স’ নিয়ে আসার মাধ্যমে অপো প্রবর্তন করে আজ অবধি বাজারে থাকা স্মার্টফোনগুলোর মাঝে সর্বোচ্চ ৯৩.৮% স্ক্রিন-টু-বডি অনুপাতের প্যানারমিক আর্ক ডিজাইনের ডিসপ্লে। এছাড়াও সম্প্রতি ‘আর১৭’ এর মাধ্যমে অপো নিয়ে এসেছে সুপার-ভোক ফ্ল্যাশ চার্জিং প্রযুক্তি।