Opu Hasnat

আজ ১২ নভেম্বর মঙ্গলবার ২০১৯,

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত কক্সবাজার

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবি ও পুলিশের সঙ্গে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। রোববার ভোরে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার সদর ইউনিয়নের মহেশখালিয়া পাড়ায় ও টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নাফ নদীর উনচিপ্রাং সংলগ্ন মদীনা জোড়া এলাকায়  এঘটনা ঘটে।

টেকনাফ থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, রোববার ভোর রাতে টেকনাফ উপজেলার সদর ইউনিয়নের মহেশখালিয়া পাড়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত এবং পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছেন।

এতে নিহত মাদক ব্যবসায়ী হলেন- টেকনাফের সদর ইউনিয়নের ডেইল পাড়ার ছালেহ আহম্মদের ছেলে মোহাম্মদ আজিজ (২৪)।

ওসি প্রদীপ জানান, শনিবার রাতে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ডেইল পাড়া থেকে মাদক মামলার পলাতক আসামি মোহাম্মদ আজিজকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের একটি দল। পরে ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধারে তাকে নিয়ে মেরিন ড্রাইভ সড়ক সংলগ্ন মহেশখালিয়া পাড়া নৌঘাটে পৌঁছলে সহযোগী মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে।

এক পর্যায়ে গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থলে মোহাম্মদ আজিজকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। এতে পুলিশের তিন সদস্য আহত হন। ঘটনাস্থলে তল্লাশী করে পাওয়া যায় একটি দেশীয় বন্দুক, সাতটি গুলি ও তিন হাজার ইয়াবা।

ওসি জানান, আহতদের উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। চিকিৎসক গুলিবিদ্ধ ব্যক্তির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠান। পরে সেখানে নিয়ে আসা হলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

এদিকে, বিজিবির টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মো. ফয়সল হাসান খান জানান, রোববার ভোর রাতে টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নাফ নদীর উনচিপ্রাং সংলগ্ন মদীনা জোড়া এলাকায় বিজিবির সঙ্গে মাদক পাচারকারিদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় একজন নিহত এবং বিজিবির দুই সদস্য আহত হন।

এতে নিহত হয়েছেন- টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মধ্যকাঞ্জর পাড়ার মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে মো. রহিম উদ্দিন ওরফে রফিক (৩৭)।

লে. কর্ণেল ফয়সল জানান, মিয়ানমার থেকে ইয়াবার বড় একটি চালান আসার খবরে বিজিবির একটি দল নাফ নদীর হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মদীনা জোড়া এলাকায় অবস্থান নেয়। সেখানে বিজিবির সদস্যরা এক ব্যক্তিকে নাফ নদীর তীরে সন্দেহজনক চলাফেরা করতে দেখেন। এক পর্যায়ে মিয়ানমার থেকে ২/৩ জন লোকসহ একটি নৌকা নদীর কিনারায় এলে ওই ব্যক্তি এগিয়ে যায়। এসময় বিজিবির সদস্যরা তাদের থামার জন্য নির্দেশ দিলে তারা গুলি ছুড়তে থাকে। বিজিবির সদস্যরাও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে।

পরে গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থলে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। এতে বিজিবির দুই সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থলে তল্লাশী করে পাওয়া যায় ৬০ হাজার ইয়াবা, একটি দেশীয় বন্দুক, তিনটি গুলি ও দুই কিরিচ।

বিজিবির অধিনায়ক বলেন, আহতদের উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে চিকিৎসক গুলিবিদ্ধ ব্যক্তিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠান। সেখানে নেবার আগেই তার মৃত্যু হয়।