Opu Hasnat

আজ ১৩ নভেম্বর বুধবার ২০১৯,

তুহিন হত্যাকান্ড : ১৬৪ ধারার জবানবন্দী দিলেন তার পিতা, চাচা ও চাচাতো ভাই সুনামগঞ্জ

তুহিন হত্যাকান্ড : ১৬৪ ধারার জবানবন্দী দিলেন তার পিতা, চাচা ও চাচাতো ভাই

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার কেজাউরা গ্রামে চাঞ্চল্যকর তুহিন হত্যাকান্ডের ঘটনায় ১০ জনকে আসামী করে শিশুটির মা মনিরা বেগম দিদরাই থানায় একটি হত্যা মামরা দায়ের করেন । এ মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে ৭ জনকে। মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় আমল গ্রহনকারী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করলে নিহতের পিতা আব্দুল বাছির, চাচা আব্দুল মোছাব্বির ও  জমসেদ কে তিনদিনের রিমান্ড মুঞ্জুর করেছে আদালত। এছাড়া ১৬৪ ধারা জবানবন্দীতে হত্যাকান্ডের দায় শিকার করেছেন নিহতের চাচা নাসির মিয়া, চাচাত ভাই শাহুরিয়ার। জাকিরুনসহ ৭ আসামীকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। অজ্ঞাত আরো ৩জন সহ ১০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন তুহিনের মা মনিরা বেগম। এদিকে তুহিন হত্যাকান্ডে জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানিয়ে জেলা ও উপজেলায় মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করছেন বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা । সকালে সুনামগঞ্জ জেলা শহরের ট্রাফিক পয়েন্টে মানববন্ধন করেছে খেলাঘর সুনামগঞ্জ জেলা শাখা ও সুজন। এ সময় বক্তারা অবিলম্বে তুহিন হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্ঠান্তমুলক শাস্তির দাবী জানান। বক্তব্য রাখেন খেলাঘরের সভাপতি বিজন সেন রায়, অ্যাডভোকেট এনাম আহমদসহ নেতৃবৃন্দ। 

এদিকে শিশু তুহিন খুনের নৃশংস ঘটনায় তার বাবা, তিন চাচা ও চাচতো ভাই জড়িত ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।  মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে আলোচিত এই খুনের ঘটনা সম্পর্কে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে সুনামগঞ্জের পুলিশ মো. মিজানুর রহমান। 

তিনি জানান, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ঠান্ডা মাথায় বাবা-চাচারা মিলে খুন করে ৫ বছর বয়সী শিশু তুহিনকে। ঘুমন্ত শিশুটিকে বাবা আব্দুল বাছির কোলে করে বাড়ির বাইরে নিয়ে যান। বাবার কোলেই ঘুমন্ত অবস্থায় শিশু তুহিনকে ছুরি দিয়ে জবাই করে চাচা নাসির উদ্দিন। 

তিনি আরো জানান, এ সময় নাছিরকে সহযোগিতা করেছিল শিশু তুহিনের চাচা মছব্বির, জমসের ও চাচাতো ভাই শাহরিয়া। 

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ হায়াতুন নবী, সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শহীদুর রহমান, ডিবি ওসি কাজি মোক্তাদির হোসেন চৌধুরী প্রমুখ। 

এর আগে সুনামগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে  ১৬৪ ধারা জবাবন্দিতে খুনের ঘটনায় সম্পৃক্তার কথা স্বীকার করেছে শিশু তুহিনের চাচা নাসির উদ্দিন ও চাচতো ভাই শাহরিয়া।  ঘটনায় জড়িত বাবা আব্দুল বাছির, চাচা মছব্বির আলী ও জমসের আলীকে তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

উল্লেখ্য, গত ১৪ অক্টোবর ভোরে  দিরাই উপজেলা খেজাউড়া গ্রামে পরিবারের অগোচরে ৫ বছরের  শিশু তুহিনকে কে বা কারা শিশুটির কান ও লিঙ্গ কেটে হত্যার পর লাশটি গাছের সাথে রশি দিয়ে বেঁধে রাখে এবং হত্যায় ব্যবহৃত দুটি ছুরি তার পেটে ঢুকিয়ে রেখে চলে যায়।

এই বিভাগের অন্যান্য খবর