Opu Hasnat

আজ ১৬ অক্টোবর বুধবার ২০১৯,

১২তম দিনেও উত্তাল বশেমুরবিপ্রবি ক্যাম্পাস শিক্ষাগোপালগঞ্জ

১২তম দিনেও উত্তাল বশেমুরবিপ্রবি ক্যাম্পাস

উপাচার্যকে প্রত্যাহার করার সুপারিশের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশের পর আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেছেন, তাঁরা ইউজিসির সুপারিশকে স্বাগত জানান। কিন্তু এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। শিক্ষার্থীদের ভাষ্য, প্রয়োজনে জীবন দেব, তবু উপাচার্য পদত্যাগ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন থেকে সরে দাঁড়াব না। আন্দোলনের ১২তম দিনে স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা নানা স্লোগানে মুখর করে রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। উপাচার্যের বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম, দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে লেখা প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। আন্দোলনের ১২তম দিনে সকাল ১১টায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন মাষ্টার্স গনিত বিভাগের ছাত্র আল গলিব।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি সাংবাদিক ভাইদের প্রতি এই দীর্ঘ সময় এবং আগামীর কর্মসুচিসহ বিশেষ করে আমাদের এই ন্যায় যুদ্ধ সম্পর্কে সর্বস্তরের জনগনকে অবহিত করতে চাই আপনাদের মাধ্যমে। সেই সাথে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই ইফজিসির প্রতি। যারা বর্তমান ভিসির সকল অপকর্ম. দুর্নীতি, স্বের আচরন যার মাধ্যমে এই বিশ্ববিদ্যালয়কে ব্যর্থ প্রতিষ্ঠান করার যে ষড়যন্ত্র করছিলেন তার বাস্ত রুপ অনুসন্ধান করে তার বহিস্কার চেয়েছেন। এটা ছিল আমাদের প্রানের আকুতি। তাই তাদেও সুপারিশকে আমলে নিয়ে কতৃপক্ষ দ্রুত ব্যাবস্থা নিবেন সেই আশা করছি। 

এ সময় তিনি তার বক্তব্যে আরো বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীরা আচার্য মহামান্য রাষ্ট্রপতি এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় দৃষ্টি আকর্ষন করছি। দুর্নীতিবাজ, অসভ্য, কু-কর্মের অধিকারী ভাইস চ্যান্সেলরকে দ্রুত অপসারন এ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। আমরা বিশববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যেতে চাই।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের আকুল আবেদন তিনি যেন দেশে ফিরেই দুর্নীতিবাজ, ঘুষখোর, অসৎ ও সমাজের শত্রু ভিসি নাসির উদ্দীনের অপসারনে ব্যাবস্থা গ্রহন করবেন। সেই সাথে কতৃপক্ষের কাছে আহ্বান আমাদের নিরীহ ছাত্র-ছাত্রীদের উপর যারা হিংস্র হামলা করে আহত করেছে তাদের বিচারের কাঠগড়ায় দাড় করানোর জোর দাবী জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) উপাচার্য খোন্দকার নাসিরউদ্দিন রোববার রাতে ক্যাম্পাস ছেড়েছেন। রাত সাড়ে নয়টার দিকে উপাচার্য তাঁর আবাসিক ভবন থেকে নিজ গাড়িতে করে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন। এ সময় তাঁর গাড়ির সামনে পুলিশের একটি গাড়ি ছিল। উপাচার্য খোন্দকার নাসিরউদ্দিনের বিরুদ্ধে ওঠা অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিষয়ে অধিকাংশ অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটি। এ কারণে তাঁকে উপাচার্যের পদ থেকে প্রত্যাহারের সুপারিশ করেছে ওই কমিটি।