Opu Hasnat

আজ ১৬ নভেম্বর শনিবার ২০১৯,

বশেমুরবিপ্রবি’র ভিসিকে লাল কার্ড দেখালেন শিক্ষার্থীরা শিক্ষাগোপালগঞ্জ

বশেমুরবিপ্রবি’র ভিসিকে লাল কার্ড দেখালেন শিক্ষার্থীরা

গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি (বশেমুরবিপ্রবি) বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি (উপাচার্য) ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিনকে লাল কার্ড দেখালেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। শুক্রবার বিকাল ৫টায় আন্দোলনের নবম দিনে শিক্ষার্থীরা তাকে লাল কার্ড দেখিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়ার আহ্বান জানান।

ভিসির পদত্যাগের দাবিতে রাত ৮টায় শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে মশাল মিছিল বের হয়। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় তারা ভিসির কুশপুত্তলিকা দাহ করেন।

এরআগে আন্দোলনের নবম দিনে শুক্রবার সকাল থেকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা প্রশাসনিক ভবনের প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন শুরু করেন। ভিসির বিরুদ্ধে নানা স্লোগানে ক্যাম্পাস মুখর করে রেখেছেন ছিলেন।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষার্থীরা ভিসি’র বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে নিয়ে আন্দোলন শুরু করেন।

বশেমুরবিপ্রবিতে শিক্ষার্থীদের মশাল মিছিল : গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) ভিসি প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিনের পদত্যাগ দাবিতে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে মশাল মিছিল করেছে।

শুক্রবার রাত ৮টায় মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জয় বাংলা চত্বর থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলে অসংখ্য শিক্ষার্থী মশাল হাতে অংশ নেয়। পরে তারা প্রশাসনিক ভবনের সামনের প্রধান ফটকে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানায়, প্রধানমন্ত্রী সব কিছু বিবেচনা করে যদি আন্দেলনরত শিক্ষার্থীদের অবস্থান ছাড়তে বলেন কেবল তখনই তারা আন্দোলন থেকে সরে যাবে। তা না হলে তাদের এক দফা দাবি অর্থাৎ ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন চলবে।

জানা যায়, গত ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষার্থীরা ভিসির বিভিন্ন অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতা নিয়ে আন্দোলন শুরু করে। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ২১ সেপ্টেম্বর বহিরাগতরা হামলা করলে অন্তত ২০ শিক্ষার্থী আহত হয়। এরপর থেকে আন্দোলন আরও বেগবান হয়। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এ ঘটনার নিন্দা আসে। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাদের এক দফার আন্দোলন অর্থাৎ ভিসির পদত্যাগ বা অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন। আর সে অনুযায়ী গত নয় দিন ধরে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে।